অনুমোদনের জন্য নতুন তালিকা জমা

কমিটি জেলা বিএনপির, আলোচনার কেন্দ্রে ‘তৃপ্তি’

দেবু মল্লিক
যশোর জেলা বিএনপির আহবায়ক কমিটি গঠনকে কেন্দ্র করে দ্বিধাবিভক্ত নেতাকর্মীদের আলোচনার ‘কী পয়েন্ট’ হয়ে উঠেছেন দলটির সাবেক কেন্দ্রীয় নেতা মফিকুল হাসান তৃপ্তি। অনুমোদিত আহ্বায়ক কমিটি নিয়ে শীর্ষ নেতাদের পাল্টাপাল্টি অবস্থানের কারণে গত ৫ আগস্ট ফের একটি তালিকা অনুমোদনের জন্য জমা দেওয়া হয়েছে।
তবে জেলা বিএনপির বর্ধিত সভার সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করে আগের কমিটির মতো নতুন তালিকাতেও নাম নেই বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক দপ্তর সম্পাদক মফিকুল হাসান তৃপ্তির-এমন আলোচনা চলছে একাংশের নেতাকর্মীদের মধ্যে। অপর অংশের নেতাকর্মীদের বক্তব্য, যোগ্যতার মাপকাটিতে জয়ী হয়েই যশোর জেলা বিএনপির কমিটিতে স্থান পাচ্ছেন তৃপ্তি। এজন্যই তাকে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দলীয় প্রতীক ধানের শীষের মনোনয়ন নেওয়া হয়েছিলো।
দলীয় সূত্রে জানা যায়, দীর্ঘদিন ধরে চলা যশোর বিএনপির রাজনীতির দুইটি পক্ষ আহবায়ক কমিটি গঠনের পর প্রকাশ্যে দ্বন্দ্বে জাড়িয়ে পড়ে। যার অংশ হিসেবে গত ৬ জুলাই একই সময়ে আহবায়ক নার্গিস বেগম ও সদস্য সচিব অ্যাডভোকেট সৈয়দ সাবেরুল হক সাবু পৃথক স্থানে সভা ডাকেন।
এর আগে ১১ এপ্রিল জেলা বিএনপির মূলতবি বর্ধিত সভা থেকে নার্গিস বেগমকে প্রধান করে একটি আহবায়ক কমিটি গঠন করা হয়। সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ধানের শীর্ষ প্রতীকে নির্বাচন করা যশোরের সব বিএনপি নেতাকে কমিটিতে সদস্য হিসেবে রাখার কথা। সভার এই সিদ্ধান্ত নিজ হাতে লেখেন খুলনা বিভাগীয় সাংগঠনিক নজরুল ইসলাম মঞ্জু। কিন্তু সেই সিদ্ধান্ত অমান্য করে মফিকুল হাসান তৃপ্তিকে অনুমোদিত কমিটি থেকে বাদ দেওয়া হয়। এজন্য দুই পক্ষ মুখোমুখি অবস্থান নেন। একই সময়ে দুই পক্ষ পৃথক বৈঠক ডাকেন।
তবে সিনিয়র নেতাদের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি বদলে গেছে। নতুন কমিটি অনুমোদনের জন্য কেন্দ্রে পাঠানো হয়েছে তালিকা। সেই তালিকা এখনো অনুমোদ না হলেও তৃপ্তিই এখন বিএনপি নেতাকর্মীদের আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে।
দলটির একাধিক নেতা জানিয়েছেন, বর্তমানে যশোর বিএনপির রাজনীতিতে যতটা না বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি বা সরকার বিরোধী রাজনীতির চর্চা হচ্ছে তার চেয়ে বেশি হচ্ছে গ্রুপিং। মূলত কমিটি গঠনকে সামনে রেখে এই তৎপরতায় জড়িয়ে পড়েছেন শীর্ষ নেতা থেকে তৃণমূলের কর্মীরাও। যেখানে তৃপ্তির কমিটিতে থাকা না থাকা নিয়েই আলোচনা বেশি।
এব্যাপারে যশোর জেলা বিএনপির সদস্য সচিব অ্যাডভোকেট সৈয়দ সাবেরুল হক সাবু বলেন, আহবায়ক কমিটি নিয়ে একটু ভুল বোঝাবুঝি হয়েছিলো। তবে সেই সমস্যা এখন আর নেই। বর্ধিত সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী অনুমোদনের জন্য নতুন তালিকা কেন্দ্রীয় কমিটির কাছে জমা দেওয়া হয়েছে।
এক প্রশ্নের জবাবে সৈয়দ সাবেরুল হক সাবু বলেন, বর্ধিত সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সবার নাম নতুন তালিকায় আছে।

শেয়ার