তালায় প্রেমিকার বাড়িতে অগ্নিদগ্ধ প্রেমিকের মৃত্যু

তালা (সাতক্ষীরা) প্রতিনিধি॥ তালার হরিশ্চন্দ্রকাঠি গ্রামে প্রেমিকার বাড়িতে অগ্নিদগ্ধ প্রেমিক যুবক বিশ্বজিৎ দে (২৫) মারা গেছে। বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। বিশ^জিৎ দে সাতক্ষীরার কালিগঞ্জের মৌতলা এলাকায় সন্তোষ দে’র ছেলে। সে দীর্ঘদিন তালা উপজেলার গোপালপুর গ্রামে মামার বাড়িতে থাকতো।
স্থানীয়রা জানান, বিশ্বজিৎ দে’র সাথে হরিশচন্দ্রকাঠি গ্রামের এক কিশোরীর সাথে প্রেমের সম্পর্ক ছিল। বিষয়টি ওই মেয়ের পরিবার অবগত ছিল। এই সম্পর্কের সূত্র ধরে প্রেমিকাসহ তার পরিবার বিভিন্ন সময় বিশ^জিৎ এর কাছ থেকে বিভিন্ন সম্পদ হাতিয়ে নেয়।
গত শুক্রবার বিশ্বজিৎ ওই কিশোরী প্রেমিকার বাড়িতে কয়েকজন বন্ধুকে বিয়ের প্রস্তাব পাঠালে বাড়ির লোকজন তাদের মারধর করে। এ ঘটনার পরদিন শনিবার বিশ্বজিৎ প্রেমিকার বাড়িতে যেয়ে ডাকাডাকি করতে থাকে। তাতে সে সাড়া না পাওয়ার এক পর্যায়ে ক্ষোভে, অপমানে সে নিজের গায়ে পেট্রোল ঢেলে আগুন লাগিয়ে দেয় বলে প্রচার হয়। এমনকি সারা শরীরে আগুন লাগার পর সে জীবনে বাঁচতে পাশের পুকুরে ঝাপ দেয় বলেও প্রেমিকার বাড়ির লোকজন প্রচার করে।
আগুনের ঘটনায় বিশ্বজিৎ এর শরীরের বিভিন্ন অংশ ঝলসে গেলে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে তালা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসে। এখানে তার অবস্থার অবনতি হলে তাকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। সেখানেই চিকিৎসাধীন থাকা অবস্থায় বৃহস্পতিবার সকালে সে মারা যায়।
এবিষয়ে বিশ্বজিৎ এর মামা সঞ্জয় দত্ত জানান, বিশ্বজিৎ হরিশ্চন্দ্রকাঠি গ্রামে গেলে প্রেমিকার বাড়ির লোকজন তাকে ব্যাপক মারধর করে। পরে তারা বিশ্বজিৎ এর গায়ে পেট্রোল ঢেলে দিয়ে আগুন ধরিয়ে দেয়। একপর্যায়ে সারা শরীরে আগুন ধরে গেলে প্রেমিকার বাড়ির এক লোক বিশ্বজিৎকে ধরে পাশের পুকুরে ফেলে দেয়। ফলে সে সময় বিশ্বজিৎ প্রাণে বেঁচে গেলেও তার শেষ রক্ষা হলোনা। এ ঘটনায় প্রেমিকার বাড়ির যেসব লোক ঘটনার সাথে জড়িত, তাদের বিরুদ্ধে থানায় মামলা করা হবে বলে সঞ্জয় দত্ত জানান।
এব্যপারে তালা থানার ওসি মো. মেহেদী রাসেল বলেন, বিশ্বজিৎ মারা গেছে বলে লোকমুখে শুনিছি। তার মারা যাওয়ার বিষটি খতিয়ে দেখা হচ্ছে এবং এব্যপারে এজাহার পাওয়ার পর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

SHARE