যশোরে কিশোরী পুত্রবধূকে ধর্ষণের অভিযোগে শ্বশুর আটক

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ যশোরে কিশোরী পুত্রবধূকে (১৪) ভয়ভীতি দেখিয়ে একাধিকবার ধর্ষণের অভিযোগে শ্বশুর আমির হোসেন মিয়াকে আটক করেছে পুলিশ। আটক আমির হোসেন মিয়া সদর উপজেলার সাড়াপোল এলাকার লেদু মিয়ার ছেলে।
কোতোয়ালি মডেল থানা পুলিশের পরিদর্শক (তদন্ত) সমীর কুমার সরকার জানিয়েছেন, পুত্রবধূকে ধর্ষণের অভিযোগে আমির হোসেন মিয়াকে আটক করা হয়েছে। এব্যাপারে থানায় মামলা হবে। আর পুত্রবধূকে থানায় পুলিশের হেফাজতে নেয়া হয়েছে।
কিশোরী পুত্রবধূ জানিয়েছেন, তার পিতা দ্বিতীয় বিয়ে করে অন্য জয়গায় থাকেন। তিনি তার খালার বাড়ি শেখহাটি থাকেন। মাস তিনেক আগে সাড়পোল এলাকার আমির হোসেন মিয়ার ছেলে ইব্রাহিমকে ভালবেসে বিয়ে করেন। ইব্রাহিম পেশায় দিন মজুর। ভালবেসে নিজে বিয়ে করায় পরিবারের সাথে ইব্রাহিমের কোন যোগাযোগ নেই। বিয়ের এক সপ্তাহের মাথায় শ্বশুর একদিন মোবাইল ফোন নিয়ে এসে বলেন, মোবাইলে গান হচ্ছে না ঠিক করে দেও বৌমা। তিনি মোবাইল হাতে নিয়ে ভিডিও ওপেন করে দেখেন খারাপ ছবি। তিনি বিষয়টি শাশুড়িকে জানালে কোন গুরুত্ব দেয়নি।
এরপর একদিন জোর করে মুখ চেপে ধর্ষণ করে। বিষয়টি ছেলেকে জানালে ছেলের কাছে কোনদিন থাকতে দেয়া হবে না বলে হুমকি দেন শ্বশুর। বাড়ির কারো সাথে যোগাযোগ নেই। যদি শ্বশুর বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেয় সে কারণে তিনি প্রথমে কাউকে কিছু বলেনি। এরপর আরো কয়েকদিন রাতে ঘর থেকে বের করে নিয়ে ধর্ষণ করেন। বিষয়টি স্বামী ইব্রাহিম ও শাশুড়িকে জানালে তারা এই বিষয়ে কোন গুরুত্ব দেয়নি। এভাবে ১৪ দিন তাকে ধর্ষণ করে।
গত ৩০ আগস্ট তিনি খালার বাড়ি শেখহাটিতে চলে যান। শনিবার শ্বশুর ফোন দেন এবং খালার বাড়িতে আসেন। শ্বশুর তার সাথে কথা বলার এক পর্যায়ে তারা খালা কিছু কথা শুনতে পান। তখনই খালা জিজ্ঞাসা করলে সত্য কথা বলি এবং শ্বশুরকে আটক করে পুলিশে দেয়। ‘দিনের পর দিন নির্যাতনের শিকার হলেও ভয়ে কাউকে জানাতে পারিনি স্বামীকে বলেও কোন প্রতিকার পাইনি’ বলে তিনি মন্তব্য করেন।

শেয়ার