জাতির পিতার খুনিদের ইতিহাস ক্ষমা করেনি : শাহীন চাকলাদার

5

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ যশোর-২ আসনের সংসদ সদস্য মেজর জেনারেল (অব.) ডা. নাসির উদ্দিন বলেছেন, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে স্বপরিবারে হত্যার মধ্যদিয়ে জাতি কলঙ্কিত হয়। তবে সেই হত্যাকারীদের বিচারের মুখোমুখি করে কিছুটা হলেও আমরা কলঙ্কমুক্ত হয়েছি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাকি হত্যাকারীদের দেশে ফিরিয়ে এনে ফাঁসি কার্যকরের মাধ্যমে জাতিকে আমরা পুরোপুরি কলঙ্কমুক্ত করবো।
গতকাল যশোরের ধর্মতলা মোড়ে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৪তম শাহাদাতবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে ডা. নাসির উদ্দিন এমপি এসব কথা বলেন।
অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে যশোর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শাহীন চাকলাদার বলেন, স্বাধীন বাংলাদেশ যাতে মাথা তুলে দাঁড়াতে না পারে এজন্য পাকিস্তানিরা এদেশের সব স্থাপনা ধ্বংস করে। ধরে ধরে বুদ্ধিজীবীদের হত্যা করে। তারপর বঙ্গবন্ধুর দূরদর্শী নেতৃত্বের কারণে বাংলাদেশে তখন কেউ না খেয়ে থাকেনি। মাত্র কয়েক বছরের মধ্যে বাংলাদেশের আর্থিক অবস্থার চেহারা বদলে যেতে থাকে। বিশ্বে কূটনৈতিক রাজনীতিতেও এগিয়ে যায় বাংলাদেশ। এজন্য দেশি-বিদেশি ষড়যন্ত্রকারীরা বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করে। তবে সেদিন এ হত্যাকাণ্ডের মাধ্যমে বন্দুকের নলের জোরে যারা রাষ্ট্রক্ষমতা দখল করে ইতিহাস তাদের ক্ষমা করেনি।
পরে এমপি নাসির উদ্দিন ও চেয়ারম্যান শাহীন চাকলাদার যশোর শহরের চুয়াডাঙ্গা বাসস্ট্যান্ডে ও নওয়াপাড়া ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের উদ্যোগে আয়োজিত আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলে যোগদান করেন। এর আগে শাহীন চাকলাদার যশোর সদর উপজেলার দেয়াড়া ইউনিয়নের এড়ান্দা বাজারে দলীয় নেতাকর্মীদের আয়োজনে অনুষ্ঠিত শোকসভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন। এসময় তিনি সাধারণ মানুষের মধ্যে মানবভোজ বিতরণ করেন।


এসব অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন ও উপস্থিত ছিলেন যশোর জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা একেএম খয়রাত হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক মীর জহুরুল ইসলাম, কৃষিবিষয়ক সম্পাদক মোশাররফ হোসেন, দপ্তর সম্পাদক মাহমুদ হাসান বিপু, উপ-প্রচার সম্পাদক জিয়াউল হাসান হ্যাপী, সদস্য শাহারুল ইসলাম, ইঞ্জিনিয়ার কাজী আলমগীর হোসেন, জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সদর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান নুরজাহান ইসলাম নীরা, যশোর পৌরসভার কাউন্সিলর মুস্তাফিজুর রহমান মুস্তা, জেলা কৃষকলীগের সহসভাপতি আব্দুল মতলেব বাবু, দেয়াড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আনিছুর রহমান আনিস, যশোর শহর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক কাজী শহিদুল হক শাহিন, তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক এসএস ইউসুফ শাহিদ, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক শফিকুল ইসলাম জুয়েল, সাবেক সহ-সভাপতি নিয়ামত উল্যাহ, সাবেক সভাপতি রওশন ইকবাল শাহী, এমএম কলেজ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক তৌহিদুর রহমান, আরবপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতা আজগর আলী রাজু, নূর ইসলাম, ইন্তাজুল ইসলাম, দাউদ হোসেন, যুবলীগ নেতা আমিরুল ইসলাম, কার্তিক চন্দ্র পাল, নাজমুল সরদার, ছাত্রলীগ নেতা আক্তার হোসেন, শিমুল হোসেন, সোহেল হোসেন প্রমুখ।