শরণখোলায় জেলেদের চাল কম দেয়া নিয়ে হট্টগোল

শরণখোলা (বাগেরহাট) প্রতিনিধি ॥ বাগেরহাটের শরণখোলায় জেলেদের ভিজিএফ’র বিশেষ বরাদ্দের চাল কম দেয়ার অভিযোগ উঠেছে। বৃহস্পতিবার (আজ) স্থানীয় ফায়েল খায়ের ভবনে উপজেলার তিন নম্বর রায়েন্দা ইউনিয়নের ৯টি ওয়ার্ডের চাল বিতরণকালে উপকারভোগীদের কয়েকজনের বস্তা পরিমাপ করা হলে ৪৬ কেজির স্থলে ৩৮ থেকে ৪২ কেজি পাওয়া যায়। এ সময় হট্টগোল শুরু হলে সাময়িকভাবে চাল দেয়া বন্ধ হয়ে যায়। পরে তদারকি কর্মকর্তার (ট্যাগ অফিসার) উপস্থিতিতে বাকিদের মাঝে সঠিক মাপে চাল বিতরণ করা হয়।
উপজেলা জ্যেষ্ঠ মৎস্য কর্মকর্তা বিনয় কুমার রায় বলেন, বঙ্গোপসাগরে ৬৫দিন মৎস্য আহরণ বন্ধ থাকার কারণে শরণখোলার ৬ হাজার ৪৪৪ জন জেলের প্রত্যেককে ৪৬ কেজি করে চাল বিশেষ বরাদ্দ দেয় সরকার। তালিকাভুক্ত জেলেদের ইউনিয়ন পরিষদের মাধ্যমে এই চাল বিতরণ করা হয়।
বৃহস্পতিবার রায়েন্দা ইউনিয়নের ৯টি ওয়ার্ডের প্রায় দুই হাজার জেলের মাঝে চাল বিতরণকালে কম দেয়ার অভিযোগ ওঠে। এ সময় যুবলীগ নেতা আজমল হোসেন মুক্তা বিষয়টি জানতে পেরে ঘটনাস্থলে গিয়ে কয়েকজন উপকারভোগীর চাল পরিমাপ করে কম হওয়ার পর বিতরণ বন্ধ করে দেন। প্রত্যেক জেলেকে ৪৬ কেজি করে চাল দেওয়ার কথা। কিন্তু সেখানে ৩৩ কেজি থেকে ৩৫ কেজি করে দেওয়া হচ্ছে বলে তিনি সাংবাদিকদের কাছে অভিযোগ করেন।
প্যানেল চেয়ারম্যান জালাল আহমেদ রুমি জানান, আজমল হোসেন মুক্তা যে মিটারে চাল পরিমাপ করেছেন তাতে ত্রুটি ছিলো। পরে ভালো মিটারে ওই চাল মাপা হলে ৪২-৪৩ কেজি করে পাওয়া গেছে।
তদারকীর দায়িত্বপ্রাপ্ত উপজেলা প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা ডা. আলাউদ্দিন মাসুদ বলেন, ৩৩ থেকে ৩৫ কেজি করে বিতরণের অভিযোগ সঠিক নয়। তবে অভিযোগকৃত কিছু বস্তা মেপে ৪২-৪৩ কেজি পাওয়া গেছে।
এব্যাপারে রায়েন্দা ইউপির চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান মিলন মুঠোফোনে বলেন, আমি চিকিৎসার জন্য খুলনায় অবস্থান করছি। রাজনৈতিক প্রতিপক্ষরা আমাকে হেয়প্রতিপন্ন করতে ষড়যন্ত্র করছে।
শরণখোলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) লিংকন বিশ্বাস বলেন, এ ব্যাপারে খোঁজখবর নিয়ে দেখা হবে।

SHARE