যশোরে হঠাৎ ডায়রিয়ার প্রাদুর্ভাব

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ যশোরে হঠাৎ করে সংক্রামণ ব্যাধি ডায়রিয়া রোগী বৃদ্ধি পেয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় এই রোগে আক্রান্ত হয়ে ৫৬ জন যশোর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। শনিবার দুপুরে ১৫ জন সুস্থ্য হয়ে বাড়িতে ফিরে যান। এদিন সন্ধ্যা ছয়টা পর্যন্ত ৩১ জন রোগী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। হঠাৎ বৃষ্টি, ভ্যাপসা গরম, এবং ঈদে বাড়তি ভারি খাবার খাওয়ার কারণে ডায়রিয়ায় আক্রান্তের সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে।
এদিকে, শনিবার সকালে নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হয়ে হযরত আলী (৫০) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। তিনি সদর উপজেলার বাদিয়াবহু গ্রামের মৃত রমজান আলীর ছেলে। স্বজনরা জানিয়েছেন, দীর্ঘদিন নিউমোনিয়াতে আক্রান্ত হয়ে বাড়িতে চিকিৎসাধীন ছিলেন। শুক্রবার সন্ধ্যায় তিনি গরুতর অসুস্থ্য হয়ে পড়লে দ্রুত তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মৃত্যু বরণ করেন। শনিবার হাসপাতালের সংক্রামণ ওয়ার্ড ঘুরে দেখা গিয়েছে, ওয়ার্ড পাঁচজন রোগীর ধারণ ক্ষমত থাকলেও রোগী চিকিৎসাধীন রয়েছে ৫৬ জন। ওয়ার্ডের মধ্যে জায়গা দিতে না পেরে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ রোগীদের বাহিরের কোরিডোরে ও এক্স-রে রুমের সামনে রেখে চিকিৎসা সেবা প্রদান করছেন।
এ ব্যাপারে হাসপাতালের শিশু ও সংক্রমণ ওয়ার্ডের চিকিৎসক ডা. আব্দুস সামাদ বলেন, ভ্যাপসা গরম অনুভব হচ্ছে। এছাড় ঋতু পরিবর্তনের প্রভাবে এবং ঈদে মানুষ ভারি খাবার খাওয়ার কারণে পেটের হজমে ত্রুটি হয়ে মানুষ ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হচ্ছে। রোগীদের চিকিৎসা দেওয়ার পাশাপাশি কলা ভর্তা, ফেনা ভাত, ডাবের পানিসহ তরল খাবার খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।
এ ব্যাপারে হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. আবুল কালাম আজাদ লিটু জানান, হঠাৎ করে ডায়রিয়ার রোগী বেড়ে যাওয়ার ও বেড সংকটের কারণে তাদের বাহিরে রেখে ব্যবস্থাপত্র দেওয়া হচ্ছে।

শেয়ার