বঙ্গবন্ধুকে স্বপরিবারে হত্যা করে আ’লীগকে নিশ্চিহ্ন করার চেষ্টা করেছিল ঘাতকচক্র : স্বপন ভট্টাচার্য্য

নিজস্ব প্রতিবেদক, মণিরামপুর ॥ এলজিআরডি মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য বলেছেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধুকে স্বপরিবারে হত্যার মধ্যদিয়ে ঘাতকরা বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও আওয়ামী লীগকে ইতিহাসের পাতা থেকে নিশ্চিহ্ন করতে চেয়েছিলো। কিন্তু আজ ঘাতকরাই ইতিহাসের আস্তা খুঁড়ে নিক্ষিপ্ত হয়েছে। ৭৫’র ঘাতকদের সর্বোচ্চ বিচার হয়েছে। পলাতক বাকী খুনিদের দেশে ফিরিয়ে এনে ফাঁসির রায় কার্যকরে সরকার কাজ করছে। বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে মণিরামপুর ফাজিল মাদরাসা মাঠে উপজেলা আওয়ামী লীগের আয়োজনে বঙ্গবন্ধুর ৪৪তম শাহাদাৎ বার্ষিকী উপলক্ষ্যে শোকসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি পৌর মেয়র কাজী মাহমুদুল হাসানের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি আরও বলেন, ১৫ আগস্টের শোক শক্তিতে রুপান্তরিত করে জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত কাজ করতে সকলকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। আগস্ট মাস এলেই সকল অপশক্তি মাথা চাড়া দিয়ে উঠে। যেকারনে এই মাস এলেই স্বাধীনতার পক্ষের সকল শক্তির হৃদয় স্পন্দন অজানা আতংকে কেঁদে উঠে।
এ সময় ৭৫ পরবর্তী নিজের কারাবরণের স্মৃতিচারণ করে বলেন, সেদিন জেল খানায় কেউ নিরাপদে ছিলেন না। সেখানে স্বাধীনতা বিরোধী ও ৭৫’র ঘাতকচক্র এদেশের স্বাধীনতা বিপন্ন করতে এবং পাকিস্তানি কায়দায় দেশ চালাতে নানা ধরনের লিফলেট বিতরণ করতো।
আওয়ামী লীগ নেতা অ্যাড. বশির আহম্মেদ খানের পরিচালনায় প্রধান অতিথি বলেন, যখন সদ্য স্বাধীন দেশ পুনর্গঠনে আত্মনিয়োগ করে দেশকে উন্নয়নের দিকে ধাবিত করছিলেন, ঠিক সেই সময় বঙ্গবন্ধুকে স্বপরিবারে হত্যা করা হয়। এ হত্যাকান্ডের মধ্যদিয়ে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও আওয়ামী লীগককে নিশ্চিহ্ন করার ষড়যন্ত্র করা হয়। কিন্তু দীর্ঘ ২১ বছর বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে ধারন করে তারই সুযোগ্য কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসে। আজ বঙ্গবন্ধুর আজীবন লালিত স্বপ্ন সোনার বাংলা গড়তে জননেত্রী শেখ হাসিনা নিরলসভাবে কাজ করে চলেছেন। বিশ্বের বুকে দেশ আজ মাথা উচুঁ করে দাঁড়িয়েছে। উন্নয়নের শিখরে আরোহন করে বিশ্বকে তাক লাগিয়ে দিয়েছেন।
সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ও উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক প্রভাষক ফারুক হোসেন, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা এম,এম নজরুল ইসলাম, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহসভাপতি নূরুল ইসলাম, জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য আবুল কালাম আজাদ, উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক ও ভারপ্রাপ্ত উপজেলা চেয়ারম্যান উত্তম চক্রবর্তী বাচ্চু, উপজেলা আওয়ামী লীগনেতা জিএম মজিদ, পৌর আওয়ামী লীগ সভাপতি আমজাদ হোসেন, সাধারণ সম্পাদক কামরুজ্জামান কামরুল, আওয়ামী লীগ নেতা ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রাজ্জাক, গাজী মোহাম্মদ আলী, মনিরুজ্জামান মনি, গাজী মাযহারুল আনোয়ার, উপজেলা ছাত্রলীগের আহবায়ক মুরাদুজ্জামান মুরাদসহ দলীয় বিভিন্ন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি-সাধারন সম্পাদক, জনপ্রতিনিধি।
আলোচনা সভা শেষে বঙ্গবন্ধু ও শাহাদাৎবরণকারি পরিবারের সদস্যদের আত্মার মাগফেরাত কামনায় বিশেষ দোয়া ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।
অপরদিকে দিবসটি উপলক্ষ্যে সকাল ৯টার দিকে উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে বিশাল শোক র‌্যালি পৌরশহরের গুরুত্বপুর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে। এতে উপস্থিত ছিলেন পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য্য (এমপি), উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি পৌর মেয়র কাজী মাহমুদুল হাসান, ইউএনও আহসান উল্লাহ শরিফী, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান (ভারপ্রাপ্ত) উত্তম চক্রবর্তী বাচ্চু, উপজেলা প্রশাসনের বিভিন্ন স্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারী, বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-শিক্ষার্থী, রাজনৈতিক, সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ শোক র‌্যালিতে অংশ নেয়।

শেয়ার