অবশেষে যশোর পুলিশের সেই কথিত সোর্স রহিম আটক

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ পুলিশের কথিত সোর্স পরিচয়দানকারী চিহ্নিত মাদক কারবারি মুরগি রহিমকে অবশেষে আটক করেছে পুলিশ। একই সময়ে রহিমের জামাতা শীর্ষ সন্ত্রাসী ম্যানসেল বাহিনীর অন্যতম ক্যাডার রনিকেও আটক করা হয়েছে। শনিবার বিকেলে শহরের মাদকের হাট নামে খ্যাত চাঁচড়া রায়পাড়া থেকে তাদের আটক করা হয়। রনি চাঁচড়া রায়পাড়ার কামরুল ইসলাম বাবুর ছেলে। তাদের আটকের খবরে এলাকাবাসী আনন্দ প্রকাশ করেছেন।
পুলিশ জানিয়েছে, শনিবার বিকেল ৫টার দিকে কোতোয়ালি মডেল থানা পুলিশের পরিদর্শক (তদন্ত) সমীর কুমার সরকারের নেতৃত্বে একদল পুলিশ মাদক বিরোধী অভিযানে যান। শহরের মাদকের হাট নামে খ্যাত চাঁচড়া রায়পাড়া অভিযানে গেলে মুরগি রহিমকে আটক করা হয়। একই সাথে মুরহিমের জামাতা রনিকেও আটক করা হয়। এছাড়া আরো দুই যুবককে আটক করা হয়। কিন্তু মুরগি রহিম দীর্ঘদিন ধরে কথিত পুলিশের সোর্স বলে নিজেকে পরিচয় দেন। আর সেই সাথে নিজেই মাদকের কারবার করেন। তাছাড়া চাঁচড়া রায়াপাড়া, তুলোতলা, চেকপোস্ট, ষষ্ঠীতলাসহ বিভিন্ন এলাকার মাদক কারবারিদের কাছ থেকে তিনি চাঁদা আদায় করেন বলে অভিযোগ রয়েছে। এছাড়া, তিনি নিজেই ফেনসিডিল এবং ইয়াবা ট্যাবলেট তৈরি করেন।
মুরগি রহিম পুলিশের দায়ের করা অন্তত অর্ধশত মাদক মামলার স্বাক্ষী। নিজে মাদকের কারবার করে আবার পুলিশের মামলার স্বাক্ষী হওয়ায় স্থানীয়দের মধ্যে নানা ধরনের সমালোচনা শুরু হয়েছে। রহিমের বিরুদ্ধে অন্তত দেড় ডজন মাদকের মামলা রয়েছে।
এদিন, রহিমের সাথে আটক করা হয়েছে তার জামাতা রনিকে। রনির মা রওশন আরা একজন চিহ্নিত মাদক কারবারি। তার পিতা কামরুল ইসলাম বাবু ওরফে কালা বাবুও মাদক কারবারি বলে জানিয়েছে এলাকাবাসী।
রনি আবার শীর্ষ সন্ত্রাসী মেহেবুব রহমান ম্যানসেলের অন্যতম ক্যাডার হিসেবে বিভিন্ন স্থানে চাঁদাবাজি, বোমাবাজি, ডাকাতি, ছিনতাই ও মাদকের কারবারসহ নানা ধরনের অপরাধ অপকর্ম করে।

SHARE