যশোরে চিকিৎসাধীন আরও দু’ডেঙ্গু রোগী

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ যশোরে চিকিৎসাধীন আরও দুই ডেঙ্গু রোগীর খোঁজ পেয়েছে জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ। বর্তমানে যশোর জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন। আক্রান্ত দু’জন ঢাকা থেকে যশোরে এসেছেন বলে জানিয়েছেন ডেপুটি সিভিল সার্জন ডা. হারুন অর রশিদ। তিনি আরও জানিয়েছেন, জেলার আটটি উপজেলার ডেঙ্গুর তথ্য সংরক্ষণের জন্য মনিটরিং টিম মঙ্গলবার থেকে মাঠে কাজ শুরু করেছেন। একই সাথে প্রচার অভিযান চলাছেন তারা।
আক্রান্তরা হচ্ছেন ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলার মনির উদ্দিনের ছেলে আমিনুর রহমান (২৭) ও যশোর সদর উপজেলার খাজুর বাজার এলাকার আজিম হোসেন(৩৩)।
মঙ্গলবার সকালে ডেঙ্গু আক্রান্তদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, তারা ঢাকায় বসবাস করেন। ডেঙ্গু আতংকে তারা নিজে বাড়িতে ফিরে আসেন। পরে রোববার হঠাৎ করে গায়ে জ্বর, বমি ভাব এবং চোখে অসহনীয় ব্যথা অনুভব করেন। তখন তারা স্থানীয় চিকিৎসকের পরামর্শ নিলেও জ্বরের প্রভাব বেড়ে যাওয়ার কারণে। সোমবার যশোর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি হন। চিকিৎসকের পরামর্শ মোতাবেক পরীক্ষা করে শরীরে ডেঙ্গুর ভাইরাস পাওয়া যায় বলে তারা জানিয়েছেন।
এদিকে ওয়ার্ডের সেবিকারা জানিয়েছেন, ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীর পাশে অন্য রোগীরা চিকিৎসা নেওয়ার কারণে তাদের মধ্যে ডেঙ্গুর ভয় দেখা দিয়েছে। তবে ডেঙ্গু রোগীদের ওয়ার্ডের মধ্যে মশারির ব্যবস্থা করা হয়েছে। ফলে অন্য রোগীদের মধ্যে ডেঙ্গু ছড়ানোর আশঙ্কা নেই।
এ ব্যাপারে ডেপুটি সিভিল সার্জন ডা. হারুন অর রশিদ জানিয়েছেন, জেনারেল হাসপাতালে ডেঙ্গু রোগীদের উন্নত চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। তবে জেলায় ডেঙ্গু ভয়াবহতা নেই। যারাই আক্রান্ত হচ্ছে তাদের ইতিহাস দেখলে বুঝা যাবে সকলে ঢাকা থেকে এই ভাইরাস বহন করেছেন। তবে বর্ষার সময় জেলার অধিবাসীদের সচেতন হতে হবে। পরিস্কার পরিচ্ছন্ন পরিবেশে বসবাস করলে এ রোগ থেকে রক্ষা পাওয়া সম্ভব।
এদিকে, ডেঙ্গু ও চিকুনগুনিয়া রোগ বিষয়ক এক সর্তক বার্তায় জেলা তথ্য অফিস বাড়ির ফুলের টব, পরিত্যক্ত টায়ার, টিনের কৌটা, ডাবের খোসা, এসি ও ফ্রিজের তলায় যাতে পানি না জমে জমতে না সেদিকে নজর দিতে আহবান জানিয়েছে। এছাড়া বাড়ির আঙ্গিনা, নির্মাণাধীন ভবনে পানির চৌবাচ্চা নিয়মিত পরিস্কার রাখার পাশাপাশি দিনের বেলায় মশারি ব্যবহারের পরামর্শ দেওয়া হয়েছে সর্তকবার্তায়।

শেয়ার