কোনভাবে থামছে না শালিখা শতখালী কানুদার খালপাড়ের মাটি লুট

শালিখা, মাগুরা প্রতিনিধি॥ শালিখা উপজেলার গোপালগ্রাম হতে শতখালী ধোপা পাড়া পর্যন্ত কানুদার খালপাড়ের মাটি লুট কোন ভাবেই থামছে না। এলাকার কতিপয় প্রভাবশালী ব্যাক্তি গায়ের জোরে খালপাড়ের মাটি কেটে পার্শ্ববর্তী শফিকামালের শাহী বিক্রস এ বিক্রি করছে এক সপ্তাহ ধরে। প্রতিদিন রাতে মাটি কেটে ১০-১২ টা ছোট ট্রাকে করে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। এলাকাবাসী প্রতিবাদ করলে হররানির শিকার হতে হচ্ছে। খালপাড়ের মাটি কেটে নেওয়ায় বন্যায় শত শত একর জমি প্লাবিত হওয়ার আশংকা করা হয়েছে।
শুক্রবার সরোজমিনে গিয়ে দেখা যায়, প্রতি আধাঘন্টা পর পর মাটি বোঝাই ছোট ছোট ট্রাক মাটি নিয়ে যাচ্ছে। এলাকার খালপাড়ের জমির মালিক আবুল খালেক মোল্যা, হাশেম আলী সর্দার, আদম মোল্যা, আতিয়ার রহমান, ফারুক হোসেন, শাহিন, মহাসিন, মর্জিনা, বেদানা, আয়েশা, ভানুবিবি, ফাতেমা, লতিকা ভানু সহ শতাধিক ব্যক্তি অভিযোগ করে বলেন-এই খাল পাড় থেকে গত এক সপ্তাহ ধরে শতখালি গ্রামের মহিউদ্দিন সর্দার নামে এক ব্যক্তিসহ কয়েকজন এই মাটি শফিকামালের ভাটায় বিক্রি করছে। অথচ খালের পাশে তাদের তেমন জমি নাই। তারা মাটি কাটতে নিষেধ করতে গেলে প্রশাসনসহ নানারকম ভয়ভিতি দেখানো হচ্ছে। ইতিপূর্বে তাদের হাতে মার খেয়ে প্রতিবাদী এক ব্যক্তির দাঁত ভাঙ্গাসহ অনেক নির্যাতনের শিকার হয়েছে। প্রতিবাদী ঐ ব্যক্তিরা আরো বলেন-স্থানীয় বিভিন্ন প্রশাসনকে জানালেও কোন কাজ হচ্ছে না এবং মাগুরা পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তারাও এই মাটিকাটার সাথে জড়িত। এ ব্যাপারে অভিযুক্ত মহিউদ্দিন সর্দার বলেন খাল পাড় থেকে আমাদের জমি থেকে পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তা মোঃ আনিস হোসেন এর অনুমতি নিয়েই মাটি বিক্রি করছি। তবে পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তা মোঃ আনিস হোসেন ও মোঃ শফিউদ্দিন বলেন আমরা কাউকে মাটি বিক্রি করার অনুমতি দেয়নি। এ ব্যাপারে শালিখা উপজেলা নির্বাাহী কর্মকর্তা মোঃ তানভির রহমান বলেন- বিষয়টা শুনলাম তবে আপনারা পানিউন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তাদের সাথে যোগাযোগ করুন। এ ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

শেয়ার