যশোরে মাদ্রাসা ছাত্রকে ছুরিকাঘাতের ঘটনায় শিক্ষকসহ আটক ২

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ যশোরে মাদ্রাসা ছাত্রকে ছুরিকাঘাতের ঘটনায় সোমবার রাতে এক শিক্ষকসহ দুইজনকে আটক করেছে কোতোয়ালি মডেল থানা পুলিশ। আটককৃতরা হলো, সদর উপজেলার কুতুবপুর গ্রামের দেলোয়ার হোসেনের ছেলে হাফেজ শামসুর রহমান ও বিরামপুর গ্রামের আব্দুল্লাহ’র ছেলে ওসামা।
বাগেরহাটের মোল্লাহাট উপজেলার মাতারচর গ্রামের কাউয়ুম হোসেনের স্ত্রী শেফালী বেগমের দায়ের করা মামলায় উল্লেখ করা হয়েছে, তার ছেলে আকিদুল ইসলাম মোল্যা যশোর শহরতলীর শেখহাটি হাফেজিয়া মাদ্রাসায় লেখাপড়া করে। গত মার্চ মাসে ওই মাদ্রাসার ফয়সাল হোসেন নামে এক ছাত্রের সাউন্ড বক্স হারিয়ে যায়। বিষয়টি নিয়ে আকিদুল ইসলামকে সন্দেহ করে সাউন্ড বক্স ফেরৎ দেয়ার জন্য চাপ সৃষ্টি করা হয়। ৮ মার্চ সকাল ৯টার দিকে ওই মাদ্রাসার তৎকালীন শিক্ষক হাফেজ শামসুর রহমানের হুকুমে আসামি ফয়সাল এবং ওসামা দুইজনে আকিদুল ইসলামকে ছুরিকাঘাত করে। পরে হাফেজ শামসুর রহমান তাকে উদ্ধার করে যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করেন। হাফেজ শামসুর রহমান এরপর আকিদুলের মায়ের কাছে মোবাইল করে বলেন আপনার ছেলের কাশির সমস্যা তাকে হাসপাতালে ভর্তি করেছি। ওইদিন দুপুরে আকিদুলের মা এসে দেখেন তার ছেলেকে ছুরিকাঘাত করা হয়েছে। এরপর তাকে প্রথমে যশোর এবং পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় নেয়া হয়। চিকিৎসা শেষে কিছুটা সুস্থ্য হয়ে থানায় এ মামলা দায়ের করা হয়। তদন্ত কর্মকর্তা কোতোয়ালি মডেল থানার এসআই আমিরুজ্জামান সোমবার রাতে কেশবপুরের একটি মাদ্রাসা থেকে হাফেজ শামসুর রহমান ও ওসামাকে আটক করে মঙ্গলবার আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে প্রেরণ করেন। তবে এ মামলার প্রধান আসামি ফয়সালকে এখনো আটক করতে পারেনি পুলিশ।

SHARE