সাতক্ষীরায় প্রাচীর ভেঙ্গে কালভার্ট নির্মাণে তৎপর ইউপি চেয়ারম্যান

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি॥ সাতক্ষীরা সদরের ব্রহ্মরাজপুরে রেকর্ডীয় সম্পত্তির প্রাচীর ভেঙে জোরপূর্বক কালভার্ট নির্মাণ বন্ধের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন করেছেন ভুক্তভোগী। বুধবার দুপুরে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে এক জনাকীর্ণ সংবাদ সম্মেলনে ব্রহ্মরাজপুর গ্রামের মৃত আহম্মদ আলী সরদারের ছেলে হাবিবুর রহমান এই অভিযোগ করেন।
লিখিত অভিযোগে তিনি বলেন, সম্প্রতি ব্রহ্মরাজপুর ইউনিয়ন পরিষদ কর্তৃক একটি কালভার্ট নির্মাণের টেন্ডার হয়। ওই কালভার্টটি নির্মাণের জন্য চেয়ারম্যান নিয়ম নীতির তোয়াক্কা না করে সম্পুর্ণ গায়ের জোরে আমার রেকর্ডীয় সম্পত্তির প্রাচীর ভেঙে নির্মাণের নির্দেশ দিয়েছে। অথচ তার পাশেই সরকারি খাস জমি রয়েছে। ওই খাস জমির উপর দিয়ে কালভার্টটি নির্মাণ করলে একদিকে আমার সম্পত্তি নষ্ট হতো না অন্যদিকে এলাকার পানি নিস্কাশিত হতো। কিন্তু যেখান দিয়ে কালভার্ট নির্মাণের চেষ্টা হচ্ছে সেখানে নির্মাণ করলে এলাকার পানি তো নিস্কাশিত হবেই না, শুধু পয়সা ব্যয় করার পাশাপাশি আমাকে ক্ষতিগ্রস্থ করা হবে। এবিষয়ে প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তাসহ বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ দায়ের করলেও কোন কাজ হচ্ছে না। চেয়ারম্যানের কথা অনুযায়ী প্রকৌশলী জাহানারা খাতুন নিজে (ফিল্ডে) সরেজমিনে না গিয়ে কাজটি পাশ করেছেন। যা নিয়ম বহির্ভুত। এধরনের প্রকল্প পাশ করার পূর্বে অবশ্যই প্রকৌশলীকে সরেজমিনে পরিদর্শন করতে হয়। কিন্তু বর্তমান প্রকৌশলী জাহানারা চেয়ারম্যানের সাথে যোগসাজস করে অফিসে বসেই প্রকল্পটি পাশ করেছেন। তিনি বলেন, আমি আওয়ামীলীগের একজন সক্রিয় সদস্য। সদস্য নং ৫৭২৪৫৭। এদিকে বর্তমান ইউপি চেয়ারম্যান শহীদুল ইসলাম জেলা বিএনপির নেতা। একারণে তিনি আমার উপর এই অবিচার করছেন। আমার অপরাধ আমি তার দল করি না। যেকারণে সামনে জায়গা থাকা সত্ত্বেও শুধু মাত্র আমাকে ক্ষতিগ্রস্থ করার জন্য কালভার্টটি নির্মাণের পায়তারা চালাচ্ছেন। সামনের খাস জমিগুলো বিএনপির লোকজন ভোগদখল করলেও সেখানে তিনি যাবেন না।
এ ব্যাপারে তিনি তার সম্পত্তির উপর জোরপূর্বক কালভার্ট নির্মাণ বন্ধের দাবিতে সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসকসহ সংশ্লিষ্ট উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

SHARE