চৌগাছার চুমকি পুলিশে চাকরি পেয়ে বেজায় খুশি

অমেদুল ইসলাম, চৌগাছা (যশোর)॥ যশোরের চৌগাছার চুমকি খাতুন ১শ’ টাকায় পেয়েছেন পুলিশের চাকরি। দরিদ্র ঘরে জন্ম নেয়া চুমকি চাকরি পেয়ে যেন সোনার হরিণ হাতে পেয়েছেন। তিনি এখন নিজে পড়ালেখা করতে পাবরে, ছোট ভাই বোনদেরে পড়ালেখা করাতে পারবে এই আনন্দে আত্মহারা। চুমকির মত উপজেলায় এবার ১৩ জন ছেলে-মেয়ে ১শ’ টাকায় পুলিশে চাকরি পেয়েছেন বলে খবর পাওয়া গেছে।
জানা গেছে, উপজেলার সিংহঝুলী ইউনিয়নের মশিউর নগর গ্রামের পঙ্গু পিতা ইয়াকুব আলীর মেয়ে চুমকি খাতুন। উচ্চ মাধ্যমিক পাশ করার পর চৌগাছা সরকারি কলেজে অনার্সে পড়ালেখা করছেন। তিনি বাংলা বিভাগের ১ম বর্ষের শিক্ষার্থী। অভাব অনটনের কারণে তার পড়ালেখা বারবার বন্ধ হওয়ার উপক্রম হয়েছে কিন্তু হাল ছাড়েনি চুমকি খাতুন। গত জুন মাসে তিনি জানতে পারেন যশোরে পুলিশে লোক নিয়োগ দেয়া হবে। চুমকি ইচ্ছা পোষণ করেন পুলিশ হবেন। এক বুক আশা নিয়ে ২২ জুন তিনি ছুটে যান যশোরে, শিক্ষাগত যোগ্যতার কাগজপত্র নিয়ে দাড়িয়ে যান লাইনে। প্রাথমিক পরীক্ষায় তিনি উত্তীর্ণ হন। এরপর বাকি সকল পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে পুলিশের চাকরি পেয়ে গেছেন চুমকি।
সদ্য চাকরি পাওয়া চামুকি খাতুনের সাথে কথা হলে তিনি বলেন, অভাব অনটনের মধ্যে আমার বেড়ে উঠা। ৩ বোন ১ ভাই আর বাবা মা নিয়ে আমাদের সংসার। ভাই বোন সকলের বড় আমি। মেঝে বোন মিথিলা খাতুন এবার এসএসসি পরীক্ষা দিয়েছে। অন্য ভাই বোন সকলেই লেখাপড়া করছে। বাবা ইয়াকুব আলী স্থানীয় একটি স’মিলে কাজ করতেন। বেশ আগে একটি দুর্ঘটনায় পিতার বাম হাত কেটে ফেলতে হয়। সংসারের আয় রোজগারের একমাত্র ব্যক্তি পঙ্গু হয়ে যাওয়ায় চরম অসহায় হয়ে পড়ি আমরা। বাবা কিছুটা সুস্থ হয়ে মাঠে কাজ করে সংসার চালান। অনেক কষ্টে চলে আমাদের সংসার, এরমধ্যে চার ভাই বোনকে পিতা লেখাপড়া করাচ্ছেন। চাকরি পেয়ে আমরা সকলেই মহা খুশি। এখন আমি নিজের পড়ালেখা শেষ করতে পারবো, ছোট ভাইবোনদেরও পড়ালেখা করাতে পারবো সর্বোপরি পিতা মাতাকে আমি সহযোগীতা করতে পারবো এটিই আমার সব থেকে বড় পাওয়া।
চুমকি খাতুনের মত গত ২২ জুন চৌগাছা উপজেলা থেকে ৯জন ছেলে ও ৪ মেয়েসহ মোট ১৩ জন পুলিশের কনষ্টেবলে চাকরি পেয়েছেন।

শেয়ার