চার ফসলি জমিতে অর্থনৈতিক অঞ্চল চায় না কেশবপুরবাসী

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ যশোরের কেশবপুরের আগরহাটির বিলে অর্থনৈতিক অঞ্চলের যে প্রস্তাবনা করা হয়েছে তা অন্যত্র সরিয়ে নেওয়ার দাবি জানিয়েছে স্থানীয় কৃষকরা। বুধবার তারা এ দাবিতে জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর কাছে স্মারকলিপি পাঠিয়েছেন। পরে প্রেসক্লাব যশোরে সংবাদ সম্মেলন করেন আগরহাটি গ্রামের বাসিন্দারা।
স্মারকলিপিতে বলা হয়, কেশবপুরের আগরহাটি মৌজায় অর্থনৈতিক অঞ্চল নির্মাণের প্রস্তাব এসেছে। কেশবপুরের আগরহাটি, খুলনার ডুমুরিয়া উপজেলার শোলগাতিয়া, চহেড়া ও রুদাঘরা গ্রামের মানুষের জীবিকা নির্বাহের একমাত্র ক্ষেত্র এই বিলটি। এ মৌজায় ৩ হাজার বিঘা চার ফসলি জমিতে ধান, পাট, শাক-শবজি, মাছসহ বিভিন্ন পণ্য উৎপাদিত হয়। যা বিদেশে রপ্তানি করে প্রচুর বৈদেশিক মুদ্রা আয় হচ্ছে। এখানে অর্থনৈতিক অঞ্চল নির্মাণ হলে কয়েক হাজার পরিবার পূর্ব পুরুষের ভিটেবাড়ি ছেড়ে জীবিকা নির্বাহের তাগিতে অন্যত্র যেতে বাধ্য হবেন।
স্মারকলিপিতে বলা হয়, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ফসলি জমি বাদ দিয়ে পতিত জমিতে অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তোলার কথা বলেছেন। কিন্তু আমাদের এই অঞ্চলে বেশ কয়েকটি পতিত বিল থাকলেও চার ফসলি বিল আগরহাটিকে বেছে নেওয়া হয়েছে। তাই আমরা এই প্রস্তাবিত অর্থনৈতিক অঞ্চল অন্যত্র সরিয়ে নেওয়ার দাবি করছি। এজন্য আমরা প্রধানমন্ত্রী হস্তক্ষেপ কামনা করছি।
স্মারকলিপি জমা দেওয়ার পর প্রেসক্লাব যশোরে সংবাদ সম্মেলনে এলাকাবাসীর পক্ষে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন কালাম হোসেন। এসময় আগরহাটি গ্রামের সিহাব উদ্দিন মোল্যা, হারুন অর রশিদ, আব্দুল মান্নান বিশ্বাস, আব্দুল মালেক, এনায়েত হোসেন সাগর, আজাদুর রহমান, জিহাদ হোসেন, ফারুক হোসেন, আব্দুর রাজ্জাক, আব্দুল হালিম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

SHARE