যশোরে সানি খুনে হিটার নয়নকে প্রধান আসামি করে ৮ জনের নামে এজাহার

 জড়িত কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ যশোরে প্লাস্টিক কারখানা শ্রমিক সানি খুনের ঘটনায় ৮জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাতনামা ৪/৫জনের বিরুদ্ধে এজাহার দিয়েছেন নিহতের বোন সম্পা খাতুন। বুধবার দেওয়া এই এজাহারে চিহ্নিত সন্ত্রাসী হিটার নয়নকে প্রধান আসামি করা হয়েছে। তবে জড়িত কাউকে এখনো গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ। গত মঙ্গলবার রাত ৮টার দিকে যশোর কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল এলাকায় হিটার নয়ন গ্রুপের ছুরিকাঘাত ও বোমা হামলায় সানি খুন হন। বুধবার আসর বাদ জানাজা শেষে কারবালা কবরস্থানে সানিকে দাফন করা হয়।
অভিযুক্তরা হলো, শহরের শংকরপুর গোলপাতা মসজিদ এলাকার ফারুক হোসেনের ছেলে সাহেদ হোসেন ওরফে হিটার নয়ন, একই এলাকার দেলোয়ার হোসেন দুলালের ছেলে শোভন, তকব্বর শেখের ছেলে মতিয়ার রহমান ওরফে সিডিআই মতি, ওয়াজেদ আলী দফাদারের ছেলে হাফিজ, শাহাজান মিস্ত্রির ছেলে শান্ত, আলমগীর শেখের ছেলে ভুট্টো, শংকরপুর মেডিকেল কলেজপাড়ার মিন্টুর ছেলে টুটুল এবং বেজপাড়া কবরস্থান রোডের জামাল হোসেনের ছেলে ভূষি সুমন।
মামলার এজাহারে নিহত সানির বোন শংকরপুর এলাকার মৃত মশিয়ার রহমান ধনুর মেয়ে সম্পা খাতুন উল্লেখ করেছেন, তার ছোট ভাই সানি একটি প্লাস্টিক কারখানায় শ্রমিক হিসেবে কাজ করতেন। আসামিরা খুন, ডাকাতি, ছিনতাই, অস্ত্র, বোমাবাজি ও মাদক সংশ্লিষ্ট কর্মকাণ্ডে যুক্ত। এলাকায় সামাজিক অবস্থান নিয়ে আসামিদের সাথে তাদের পূর্ব বিরোধ রয়েছে। সে কারণে সন্ত্রাসী হিটার নয়নের নেতৃত্বে তার সহযোগীরা সানিকে খুন করার জন্য ষড়যন্ত্র ও সুযোগ খুঁজতে থাকে। এরই অংশ হিসেবে গত ১৮ জুন সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে সানি বাড়ি থেকে খুলনায় তার মায়ের কাছে যাওয়ার উদ্দেশ্যে যশোর কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনালে আসে। এসময় সন্ত্রাসী নয়নের নেতৃত্বে সানির উপর হামলা চালিয়ে তাকে এলোপাতাড়ি ছুরিকাঘাত করে। সানির সাথে থাকা একই এলাকার অশোকের ছেলে আনন্দ নামে আরেক যুবক আহত হয়। এরপর সানির চিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে এলে ওই সন্ত্রাসীরা কয়েকটি বোমার বিস্ফোরণ ঘটিয়ে পালিয়ে চলে যায়। পরে সানিকে উদ্ধার করে যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।
সানির বোন আরো জানিয়েছেন, কিছুদিন আগে নয়নের নেতৃত্বে সানির উপর বোমা হামলা চালানো হয়।
এদিকে, এঘটনার একদিন পার হলেও খুনি হিটার নয়নকে পুলিশ আটক করতে পারেনি। ফলে পরিবারের সদস্যরা এখনো আতংকের মধ্যে রয়েছেন। অপরদিকে মঙ্গলবার সন্ধ্যার পরে সানির উপরে হামলা চালিয়ে হিটার নয়ন যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতাল থেকে পালিয়েছে। পুলিশ এখনো তাকে খুঁজে পায়নি।
এদিকে কোতোয়ালি মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা অপূর্ব হাসান বলেছেন, সানি হত্যায় জড়িতদের গ্রেপ্তারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

শেয়ার