বর্ষা মৌসুমেও পুড়ছে যশোর
গতকাল ছিল ৩৯ দশমিক ২ ডিগ্রি তাপমাত্রা

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ জনমনে ধারণা ছিল বর্ষা মৌসুম আসলে বৃষ্টির দেখা মিলবে। কিন্তু বৃষ্টির দেখা মেলাতো দূরে থাক; আকাশে মেঘের ছিটেফোটা পর্যন্ত নেই। আষাঢ় মাসের দু’দিন পেরিয়ে গেলেও বৃষ্টির সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে না। ঋতু পরিক্রমায় গ্রীষ্মকাল চলে গেলেও যশোরে গরমের তীব্রতা কমেনি বরং দাপট বেড়েছে গরমের। বর্ষার দিনেও সর্বোচ্চ তাপমাত্রায় পুড়ছে যশোর। রোববার যশোরের তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় ৩৯ দশমিক ২। এটি ছিল গতকাল দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা। আবহাওয়া অধিদপ্তরের দেওয়া তথ্য বলছে, বর্ষার ভেতরও যশোর জেলার উপর দিয়ে মৃদু থেকে মাঝারি ধরণের তাপপ্রবাহ বয়ে চলেছে। যেটি আরো বেশ কয়েক দিন অব্যাহত থাকবে। সেই সাথে রাত ও দিনের তাপমাত্রা ১ থেকে ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত বৃদ্ধি পেতে পারে। তবে বৃষ্টির সম্ভাবনার কথাও বলছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। যশোরের উপর দিয়ে দমকা হাওয়া বয়ে যাওয়ার পাশাপাশি মাঝারি ধরণের বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টির সম্ভাবনার কথা বলছে পূর্বাভাস।
আবহাওয়াবিদরা বলছেন, তাপমাত্রা ৩৬ থেকে ৩৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস হলে তা ‘মৃদু’ এবং ৩৮ থেকে ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াস হলে তা ‘মাঝারি’ তাপ প্রবাহ। আর তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রি ছাড়িয়ে গেলে তাকে তীব্র তাপ প্রবাহ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়। সেই হিসাবে যশোরে মাঝারি মাত্রার তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে।

শেয়ার