যশোরে সড়ক দুর্ঘটনায় পরিবহনের হেলপার ও গহবধূ নিহত, আহত ৯

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ যশোর সদর ও মণিরামপুরে আলাদা সড়ক দুর্ঘটনায় পরিবহর হেলপার ও নারীসহ দু’জন নিহত হয়েছে। মঙ্গলবার ভোরে যশোর সদর উপজেলার নোঙ্গরপুর ও বেলা সাড়ে ১১ টার দিকে মণিরামপুর উপজেলার দূর্বাডাঙ্গা ইউনিয়নের চিনেডাঙ্গা মোড় এই ঘটনা ঘটে।
নিহত পরিবহনের হেলপার হোসেন আলী (১৮) যশোর সদর উপজেলার বালিয়াডাঙ্গা গ্রামের হাসেম আলী বিশ্বাসের ছেলে। ট্রাকের ধাক্কায় নিহত হালিমা বেগম (৫৫) মণিরামপুর উপজেলার কোনাখোলা গ্রামের আব্দুল খালেকের স্ত্রী।
নিহত হেলপারের চাচাতো ভাই সেলিম বিশ্বাস জানান, হোসেন আলী বিশ্বাস ঈগল পরিবহনে হেলপারের কাজ করতেন। সোমবার দিবাগত রাতে ঈগল পরিবহনের একটি বাস ঢাকা থেকে যশোরের দিকে আসছিলো। পথিমধ্যে যশোর-মাগুরা মহাসড়কের নোঙ্গরপুর নামক এলাকায় ভোর চারটার দিকে বাসটি পৌছালে চালক নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে সড়কের পাশে একটি গাছের সাথে ধাক্কা খায়। এতে হেলপার হোসেন আলী বিশ্বাসসহ পরিবহনে থাকা নয় জন যাত্রী আহত হন। স্থানীয় লোকজন, ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা তাদের উদ্ধার করে যশোর জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে আসলে জরুরি বিভাগের চিকিৎসক সফিউলল্লাহ সবুজ হেলপার হোসেন আলিকে মৃত ঘোষণা করেন।
চিকিৎসক সফিউলল্লাহ সবুজ বলেন, হাসপাতালে আনার আগেই হেলপার হোসেন আলির মৃত্যু হয়েছে। আহতদের প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।
যশোর কোতোয়ালি থানার এসআই মনিরুল ইসলাম বলেন, এ ব্যাপারে থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করা হয়েছে। ঈগল পরিবহনে বাসটি আটক করা হয়েছে।
অপরদিকে, মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে মনিরামপুরে ইটভাটার ট্রাকের ধাক্কায় হালিমা বেগমের মৃত্যু হয়।
নিহতের স্বজনরা জানান, ঘটনার দিন সকালে চিনেটোলা বাজার থেকে ভ্যানে করে বাড়ির দিকে আসার পথে স্থানীয় একটি ব্রিকসের ট্রাক ভ্যানটিকে ধাক্কা দিলে তিনি রাস্তার উপরে পড়ে গুরুতর আহত হন। পরে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।
মণিরামপুর থানার এস আই তাপস কুমার সিংহ বলেন, লাশটি ময়নাতদন্ত জন্য যশোর জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। ট্রাকটি আটক করা হয়েছে। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

SHARE