চাঁদ তো মঙ্গলেরই অংশ: ট্রাম্প

সমাজের কথা ডেস্ক॥ মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা কেন ফের চন্দ্রাভিযানে মনোযোগ দিচ্ছে, এ নিয়ে প্রশ্ন তোলার পাশাপাশি চাঁদকে মঙ্গলের অংশ বানিয়ে এবার জ্যেতির্বিজ্ঞানে আগ্রহীদের আক্কেলগুডুম করে দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প।
শুক্রবার টুইটারে মার্কিন মহাকাশ নীতির প্রসঙ্গ উত্থাপন করে তিনি বলেছেন, যত টাকা আমরা খরচ করছি, তাতে নাসার এখন চাঁদে যাওয়া নিয়ে কথা বলা মোটেও উচিত হয় না।
“এটা আমরা ৫০ বছর আগেই করেছি। এখন তাদের আরও বড় কিছুর দিকে নজর দেওয়া উচিত- মঙ্গলসহ (চাঁদও যার অংশ) প্রতিরক্ষায় ও বিজ্ঞানে,” বলেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট।
তার এ টুইট অল্প সময়ের মধ্যেই তুমুল আলোচনার জন্ম দেয় বলে জানিয়েছে ব্রিটিশ দৈনিক গার্ডিয়ান।
ট্রাম্পের এমন ঘোষণা মহাকাশপ্রেমীদের স্তম্ভিত করে দিলেও নাসা এখনো এ প্রসঙ্গে কিছু বলেনি।
বিজ্ঞানীদের ধারণা, লক্ষ কোটি বছর আগে পৃথিবীর সঙ্গে গ্রহসদৃশ কিছুর সংঘর্ষে সৃষ্ট ধ্বংসস্তূপ থেকেই চাঁদের উদ্ভব ঘটেছিল। পৃথিবীর এ উপগ্রহটি থেকে মঙ্গলের দূরত্ব প্রায় ১৪ কোটি মাইল দূরে। ট্রাম্পের এই টুইট তার প্রশাসনের মহাকাশনীতি নিয়েও ধোঁয়াশা বাড়িয়েছে।
তিন সপ্তাহ আগে টুইটারে দেওয়া অন্য এক পোস্টে মার্কিন প্রেসিডেন্ট নিজেই যুক্তরাষ্ট্র ‘ফের চাঁদে যাচ্ছে’ বলে ঘোষণা দিয়েছিলেন।
মে মাসে নাসার প্রশাসক জিম ব্রিডেনস্টাইনও ২০২৪ সালের মধ্যে চাঁদে ফের নভোচারী পাঠানোর পরিকল্পনার কথা জানিয়েছিলেন। ব্রিডেনস্টাইনকে ট্রাম্পই নাসায় নিয়োগ দিয়েছিলেন।

এর আগে গত বছরের অক্টোবরে মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স অদূর ভবিষ্যতেই মার্কিনীরা আবার চাঁদে নামতে যাচ্ছে বলে আশার কথা শুনিয়েছিলেন।
কেউ কেউ বলছেন, ট্রাম্প আসলে তার শুক্রবারের টুইটে চাঁদ থেকে মঙ্গলে যাওয়া বিষয়ক নাসার বিস্তৃত পরিকল্পনার প্রসঙ্গ তুলেছেন।
মার্কিন প্রেসিডেন্টের টুইটটিকে যুক্তরাষ্ট্রের মহাকাশ বিষয়ক নীতি হিসেবে বিবেচনা করা হবে কিনা- হোয়াইট হাউস গার্ডিয়ানের এমন প্রশ্নের তাৎক্ষণিক কোনো জবাব দেয়নি।
ট্রাম্পের এমন অবস্থানের পেছনে টেলিভশন চ্যানেল ফক্সের একটি অনুষ্ঠানও ভূমিকা রাখতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।
ওই অনুষ্ঠানে অতিথি হয়ে আসা সাংবাদিক নেইল কাভুতো নাসার চন্দ্রাভিযান নিয়ে আপত্তি তুলেছিলেন।
“নাসা তার পরবর্তী লক্ষ্য হিসেবে চাঁদে মনোযোগ দিচ্ছে। আপনি চাইলে দিতেই পারেন, কিন্তু এটি না আমরা কয়েক দশক আগেই শেষ করেছিলাম,” প্রশ্ন তোলেন কাভুতো।
অনুষ্ঠানটি সম্প্রচার হওয়ার ঘণ্টাখানেক পরই টুইটারে নাসার বিরুদ্ধে খড়্গহস্ত হন ট্রাম্প।
টুইটারে ভুলভাল বলার অভ্যাস অবশ্য ট্রাম্পের জন্য নতুন নয়।
শ্রীলঙ্কায় জঙ্গি হামলার পর টুইটে ১৩ কোটি মানুষ নিহত হওয়ার খবর দিয়ে পরে তা তুলেও নিয়েছিলেন তিনি। তবে ‘চাঁদকে মঙ্গলের অংশ’ বানানো টুইটটি এখনও বহাল তবিয়তেই আছে।

SHARE