১৮ কোটি টাকার যন্ত্রণাংশ ক্রয়ে ঘাপলা অভিযোগের উচ্চ পর্যায়ের তদন্ত সম্পন্ন

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি॥ বিগত ১৭-১৮ অর্থবছরে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালসহ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স গুলোতে ভারী যন্ত্রাংশ ক্রয়ের নামে ১৮ কোটি টাকা লুটপাটের ঘটনায় দুর্নীতি দমন কমিশন দুদক ও স্বাস্থ্য বিভাগের সমন্বয়ে ৫ সদস্যের উচ্চ পর্যায়ের তদন্ত টিম তদন্তকার্য সম্পন্ন করেছেন। বুধবার সকাল সাড়ে ৯টা থেকে দুপুর দেড়টা পর্যন্ত সিভিল সার্জন অফিসের স্টোর ও হাসপাতালে ঘুরে বিভিন্ন যন্ত্রাংশ দেখেন টিম সদস্যরা।
তদন্ত টিমের নেতৃত্ব দেন দুদকের প্রধান কার্যালয়ের উপ-পরিচালক শামসুল আলম। এ সময় সঙ্গে ছিলেন উপসহকারি পরিচালক জালাল উদ্দীন ও শহিদুল আলম। এছাড়াও স্বাস্থ্য বিভাগের সহকারি পরিচালক শৃঙ্খলা ডা: সৈয়দ কামরুল ইসলাম ও সহকারি পরিচালক (হাসপাতাল) ডা: মাসুদ রেজা খান। তদন্ত কার্যে উপস্থিত থেকে সহযোগিতা করেন বর্তমান সিভিল সার্জন ডা: রফিকুল ইসলাম ও সাবেক সিভিল সার্জন ডা: তৌহিদুর রহমান। এ সময় সিভিল সার্জন অফিসের হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তা আনোয়ার হোসেন ও স্টোরকিপার একেএম ফজলুল হক উপস্থিত ছিলেন।
সার্ভে কমিটির আহবায়ক ডা: আসাদুজ্জামান জানান, সার্ভে বোর্ডের ৩ সদস্যের স্বাক্ষর নকল করে যন্ত্রাংশ বুঝে নেয়ার বিষয়টি তাদেরকে ডেকে শুনেছেন এবং লিখিতভাবে জবাব নিয়েছেন। এছাড়াও তদন্ত কমিটি ক্রয়কৃত যন্ত্রাংশের বাজার দর ও মান নিয়ে তদন্তে বেশি গুরুত্ব দিয়েছেন।
তবে এসব বিষয়ে ক্যামেরার সামনে কথা বলেননি তদন্ত কমিটির প্রধান শামসুল আলম। তারা সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ১৭-১৮ অর্থ বছরে ক্রয়কৃত বিভিন্ন স্বাস্থ্য যন্ত্রাংশের দাম ও মান নিয়ে তদন্তকার্য শুরু করেন। এরিপোর্ট লেখা পর্যন্ত তদন্ত কমিটি সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালেই ছিলেন।

শেয়ার