টর্নেডোয় লণ্ড-ভণ্ড আশাশুনি বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি ॥ সাতক্ষীরার আশাশুনিতে মঙ্গলবার বিকালের টর্নেডোর আঘাতে বিদ্যুতের ৩৯টি খুটি পড়ে গিয়ে উপজেলার ৫৬ হাজার গ্রাহক বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন অবস্থায় আছেন। ব্যবসা প্রতিষ্ঠান গুলো মুখ থুবড়ে পড়েছে। শিক্ষার্থীরা রাতে পড়তে পারছে না। রমজান মাসে পরিবারের সকলকে নিয়ে গরমে নাজেহাল অবস্থায় দিন কাটাচ্ছে। বিশেষ করে চিংড়ি প্রধান এলাকায় বরফের অভাবে চিংড়ি সংরক্ষনে হিমসিম খাচ্ছে ব্যবসায়ীরা। এই বিদ্যুতের খুটি তুলতে ৪/৫ দিন লাগতে পারে উল্লেখ করেই পল্লী বিদ্যুতের ডিজিএম বিকল্প পথে অতি দ্রুত বিদ্যুৎ সংযোগ চালু করা হবে বলে জানিয়েছেন।
মঙ্গলবার বিকাল আকস্মিক টর্নেডোর আঘাতে আশাশুনি সড়কের পাশে বিদুতের ৩৯টি খুটি পড়ে যায়। এতে আশাশুনি উপজেলা সম্পুর্ণ বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। সারারাত অন্ধকারের কাটায় এলাকাবাসী। সকাল থেকে বিদ্যুতের লোকজন কাজ করে গেলেও এই খুটিতে বিদ্যুৎ সংযোগ স্থাপন করতে এখনো ৪/৫ দিন লাগবে বলে পল্লী বিদ্যুৎ অফিস জানিয়েছে। বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন আশাশুনির মহেশ্বরকাটি মোকামে সব ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ হওয়ার উপক্রম হয়েছে। বরফ মিল গুলো বন্ধ হয়ে গেছে। ঈদকে সামনে রেখে বিদ্যুৎ বিহীন দোকানদারদের বেঁচা কেনা হচ্ছে না বললেই চলে। অফিস আদালতে ইউনিয়ন পরিষদে কোন কাজ করতে পারছে না। ঝড় এলেই এখানে বিদ্যুৎ সংযোগ বন্ধ হয়ে যায়। এলাকাবাসী দ্রুত বিদ্যুৎ পেতে সংশ্লিষ্ট মহলের হস্তক্ষেপ দাবি করেছে।
আশাশুনি উপজেলার বুধহাটা ইউপি চেয়ারম্যান এবিএম মোছাদ্দেক জানান, চিংড়ি প্রধান এই এলাকায় দ্রুত বিদ্যুৎ সংযোগ না দেয়া গেলে মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্ত হবে ব্যাবসায়ীরা।
আশাশুনি পল্লী বিদ্যুৎ বিভাগ ডিজিএম মাসুম আহমেদ জানান, রাতদিন পরিশ্রম করা হচ্ছে। পড়ে যাওয়া খুটি তলে সংযোগ দিতে আরো ৪/৫ দিন লাগবে। তবে বিকল্প পথে আজ বিকালের মধ্যে আশাশুনিতে বিদ্যুৎ চালু করা হবে। আশাশুনি উপজেলায় ৫৬ হাজার গ্রাহক বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন হয়ে রয়েছে।

শেয়ার