যশোরে পাওনা টাকা চাওয়ায় ব্যবসায়ীকে হয়রানির অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ যশোরে নাজমুল ইসলাম মঞ্জু নামে এক ব্যবসায়ী পাওনা টাকা চাইতে গিয়ে নানাভাবে হয়রাণির শিকার হচ্ছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। সদর উপজেলার তরফ নওয়াপাড়া গ্রামের ইমরান মিয়া ইমুর কাছে তার সাড়ে তিন লাখ টাকা পাওনা ফেরত চাওয়ায় মঞ্জুর বিরুদ্ধে আদালতে একটি মিথ্যা মামলাও করা হয়েছে। এব্যাপারে মঞ্জু কোতোয়ালি মডেল থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।
নাজমুল ইসলাম মঞ্জু বলেন, সুসম্পর্কের জের ধরে ইমরান মিয়া ইমু ২০১৬ সালে দুই লাখ টাকা ধার নেন। পরে তার ব্যবসায়ীক প্রয়োজনে আমার কাছ থেকে আরো দেড় লাখ টাকা ধার নেন। সবমিলে আমি তার কাছে সাড়ে তিন লাখ টাকা পাবো। এই টাকা নেওয়ার সময় তিনি আমাকে এবি ব্যাংকের চারটি চেকও দিয়েছেন। কিন্তু টাকা ফেরত চাইলে আর দেয়নি। শুধু আমার নয়, এলাকার আরো অনেকের কাছ থেকে তিনি এভাবে টাকা নিয়েছেন। এখন আমি টাকা ফেরত চাওয়ায় আমাকে নানাভাবে হয়রাণি করা হচ্ছে। সর্বশেষ তিনি আমার বিরুদ্ধে যশোর আদালতে একটি মিথ্যা চাঁদাবাজির মামলা করেছেন।
তিনি আরো অভিযোগ করেন, মামলা করার পাশাপাশি ইমু তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন পত্রিকায় মিথ্যা তথ্য সরবরাহ করে অসত্য প্রতিবেদন প্রকাশ করিয়েছেন। সেখানে দাবি করা হয়েছে, ইমুর ম্যানেজারকে মারপিট করে মঞ্জু ২৫ হাজার ৫০০ টাকা ছিনতাই করে নিয়েছেন। এঘটনায় আহত ম্যানেজার শরিফুল আলম হালিমকে যশোর জেনারেল হাপসাতালে ভর্তি করা হয়। কিন্তু হালিমকে তিনি কোন মারপিট করেননি এবং তিনি হাসপাতালে ভর্তি হননি।
এভাবে একের পর এক হয়রাণি করায় বর্তমান মঞ্জু নানা আশঙ্কায় রয়েছেন উল্লেখ করে প্রকৃত সত্য যাচাই করে ব্যবস্থা নিতে তিনি প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

শেয়ার