যশোরে সন্দেহভাজন ৪ জনকে নিয়ে বিপাকে পুলিশ

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ পৃথক স্থান থেকে যশোরে সন্দেহজনক চারজনকে আটক করেছে পুলিশ। কেউ বলছে তারা রোহিঙ্গা। আবার কেউ বলছে তারা ছেলে ধরা। আর আটক করার পর পুলিশের কাছে তারা প্রলাপ বকছেন। তবে পুলিশ তাদের বিষয়ে নিশ্চিত হতে পারেনি। তাদের বিষয়ে পুলিশ বিস্তারিত খোঁজখবর নিতে শুরু করেছে।
আটককৃত চারজনের মধ্যে এক নারীর ভাষা কেউ বুঝতে পারছে না। তিনি বার্মিজ ভাষায় কথা বলছেন। যা কেউই বুঝতে পারছে না। অন্য তিনজনের একজন হলেন, সঞ্জিত কুমার বিশ্বাস (৪৫)। তার বাবার নাম নিশিত কুমার বিশ্বাস বাড়ি ভারতে। এর বেশি তিনি বলতে পারছেন না। আরেকজন মুক্তারুদ্দিন (৬৫)। তিনি কিশোরগঞ্জের করিমগঞ্জ থানার মোহিতখালি গ্রামের আব্দুর রাজ্জাকের ছেলে। চতুর্থজন রেহেনা ওরফে হেনা বেগম (৪৮)। তিনি পাবনা জেলার আব্দুস সালামের স্ত্রী। তার পিতার নাম শামসুল হক। এর বেশি কিছু বলতে পারছিলেন না।
পুলিশ বলছে, সঞ্জিত কুমারকে গতকাল রাতে যশোরের কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল এলাকা থেকে স্থানীয়দের সংবাদের ভিত্তিতে থানায় আনা হয়েছে। সঞ্জিতের সাথে কথা বলে ধারণা করা হচ্ছে, তিনি মানসিক ভারসম্যহীন। মুক্তরুদ্দিনকে শহরতলীর বিরামপুর থেকে স্থানীয়দের সংবাদের ভিত্তিতে পুলিশ থানায় এনেছে। মুক্তারুদ্দিনের মানসিক সমস্যা বলে মনে করা হচ্ছে। পুলিশের দাবি, তিনি নাম ঠিকানা প্রকাশের সময় একেক সময় একেক রকম বলছেন। আর নাম বলতে না পারা নারী বার্মিজ ভাষায় কথা বলছেন। কিন্তু তিনি সব সময় প্রলাপ বকছেন। রেহেনা ও মাঝে মধ্যে নাম ঠিকানা ভিন্ন ভিন্ন রকম বলছেন। সব মিলিয়ে পুলিশের কাছে উদ্ধার হওয়া চারজনই মানসিক ভারসাম্য বলে মনে করা হচ্ছে। এ বিষয়টি নিয়ে পুলিশের পক্ষ থেকে তাদের চারজনকেই ভিন্ন ভিন্ন রকম সমস্যা আছে বলে মনে করছে। তার পরও নিয়মানুযায়ী তাদের বিষয়টি দেখা হবে বলে জানিয়েছে পুলিশের পক্ষ থেকে।

শেয়ার