শরণখোলা ‘নার্সদের অবহেলায়’ প্রসূতি ও নবজাতকের মৃত্যুর অভিযোগ

শরণখোলা (বাগেরহাট) প্রতিনিধি॥ বাগেরহাটের শরণখোলায় নার্সদের অবহেলায় এক প্রসূতির মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। ৮ মে বুধবার দুপুরে শরণখোলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এ ঘটনা ঘটেছে। নিহতের পরিবারের দাবি বুধবার দুপুরে উপজেলার রায়েন্দা এলকার বাসিন্দা দিনমজুর মামুন মিয়ার স্ত্রী ৩ সন্তানের জননী গৃহবধূ মুন্নী আক্তারকে (২৫) প্রসবজনিত বেদনার কারণে শরণখোলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন তার পরিবারের সদস্যরা। ওই দিন দুপুরে হাসপাতালের কর্তব্যরত নার্স জোহরা খাতুন, মেহেরুন নেছা, মাধবী রানী, তড়িঘরি করে সন্তান প্রসবের জন্য ডেলিভারী কক্ষে নিয়ে যান ওই গৃহবধূকে। এ সময় একটি ছেলে সন্তানের জন্ম হয়। কিছুক্ষণ পর নার্সরা জানান মা ও নবজাতককে বাঁচানো যায়নি। তবে মৃতের স্বামী মামুন দাবি করেন, অসুস্থতা দেখে তিনি তার স্ত্রীকে উন্নত চিকিৎসার জন্য অন্যত্র নিতে চাইলেও হাসপাতালের নার্সরা তাকে নিতে দেননি। আমরাই এখানে ডেলিভারী করাতে পারব। নার্সদের অবহেলার কারণে তার স্ত্রী ও সন্তানের মৃত্যু হয়েছে বলে দাবি মামুনের। তিনি এ ঘটনায় জড়িতদের বিচার দাবি করেন। এ বিষয়ে নার্সদের পক্ষে জোহরা খাতুন বলেন, রোগীর অবস্থা প্রথম থেকেই খারাপ ছিল। আমরা ডেলিভারি করতে চাইনি। কিন্তু প্রসূতির স্বামীর অনুরোধের কারণে নরমাল ডেলিভারির চেষ্টা করেছি। অতিরিক্ত রক্তক্ষরণের কারণে এ সমস্যা হয়েছে। অপরদিকে, শরণখোলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য ও প.প. কর্মকর্তা ডা. আবু সুফিয়ান রুস্তম জানান, ওই গৃহবধূকে মুমুর্ষূ অবস্থায় হাসপাতালে নিয়ে এসেছিল তার স্বজনেরা। রক্তের অভাব থাকার কারণে তার স্বজনদের রক্ত সংগ্রহের জন্য বলা হয়েছিল। কিন্তু তারা রক্ত সংগ্রহ করতে ব্যর্থ হওয়ায় এই দুর্ঘটনা ঘটেছে। তবে কর্তব্য পালনে নার্সদের কোন অবহেলা থাকলে তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা গ্রহণ কর হবে।

শেয়ার