রমজানের বাজার পেয়াজের ঝাঁঝ সহনশীল হলেও বেগুনের দাম অস্বাভাবিক

দেবু মল্লিক
মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশে রমজানকে সামনে রেখে যেখানে নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের দাম কমানোর প্রতিযোগিতে চলে, সেখানে যশোরের বাজারে বেশ কয়েকটি পণ্যের দাম বেড়েছে। আগে থেকে চড়া ছিলো সবজির বাজার। আর ৪৫ টাকার বেগুনের দাম গতকাল এক লাফে দাঁড়ায় ৬০ টাকায়।
এছাড়া রোজাকে সামনে রেখে সাড়ে ৪০০ টাকার গরুর মাংস গতকাল ৫০০ টাকা বিক্রি করেছেন ব্যবসায়ীরা। একইভাবে বেড়েছে দেশি মুরগি ও ব্রয়লার মুরগির দাম।
তবে জেলা বাজার নিয়ন্ত্রণ কর্মকর্তা বলছেন, অধিকাংশ পণ্যের দাম আগের মতোই স্থিতিশীল রয়েছে। রসুন, আদার মতো কিছু পণ্যের দাম সামান্য বেড়েছে।
যশোরের বিভিন্ন বাজার ঘুরে জানা যায়, সপ্তাহখানেক আগের ১৫ টাকার আলু এখন কেজিপ্রতি বিক্রি হচ্ছে ১৬ থেকে ১৭ টাকা দরে। ৩০ টাকা কেজি দরের কাঁচাকলা ৪০ টাকায়, ৪৫ টাকার লাউ ৫০ টাকা, ৩৫ টাকার পেপে ৪০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। রোজাকে সমানে রেখে পিয়াজের দামও বেড়েছে। ২০ টাকার পিয়াজ এখন বিক্রি হচ্ছে ২৫ টাকা। সবচেয়ে দাম বেড়েছে বেগুনের। সপ্তাহখানেকের ব্যবধানে প্রতি কেজি ৪০ টাকার বেগুন এখন যশোরের বাজারে বিক্রি হচ্ছে ৬০ টাকা দরে।
তবে সবজির দাম কিছুটা বাড়লেও বাড়েনি ভোজ্য তেলের দাম। আগের মতো সয়াবিন তেল বিক্রি হচ্ছে ৮৫টাকায়। আর সুপার পাম অয়েল পাওয়া যাচ্ছে ৭৫ টাকায়। এছাড়া ছোলাও আগের মতো ৭৫ থেকে ৮০ টাকা ও মসুরীর ডাল ৭৫ থেকে ৮৫ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।
যশোর বড় বাজারের মাংসের দোকান থেকে জানা যায়, প্রতি কেজি গরুর মাংস বিক্রি হচ্ছে ৫০০ টাকা দরে। যদিও সপ্তাহখানেক আগেও এই বাজারে সাড়ে ৪০০ টাকা দরে এই মাংস বিক্রি হয়েছে। এছাড়া দেশি মুরগি প্রতিকেজি সাড়ে ৩০০ টাকা ও ব্রয়লার বিক্রি হচ্ছে ১৬০ টাকায়।
তবে রোজাকে সামনে রেখে পণ্যের দাম সামান্য বাড়লেও বেজায় ক্ষুব্ধ সাধারণ ক্রেতারা। তাদের একজন যশোর উপশহর এলাকার বাসিন্দা ইমরান হোসেন। তিনি বলেন, ‘এটা কোনো ব্যবস্থা হলো? এক সপ্তাহের মধ্যে বেগুনের দাম দেড়গুণ বেড়ে গেল। মাংস দাম ৫০ টাকা বেশি।’
গতকাল বিকালে যশোর বড়বাজারে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য ক্রয় করতে আসা ধর্মতলা এলাকার রবিউল ইসলাম বলেন, পত্রিকায় পড়েছি রোজার মাসে সৌদিআরবে পণ্যের দাম কমে। আর আমাদের ব্যবসায়ীরা দাম বাড়াচ্ছে। তাহলে কিভাবে চলবে? সরকারের উচিত কঠোরভাবে ব্যবস্থাটি নিয়ন্ত্রণ করা।
যশোর জেলা বাজার নিয়ন্ত্রণ কর্মকর্তা মনোয়ার হোসেন বলেন, রোজাকে সামনে রেখে শুধুমাত্র রসুন ও আদার দাম কিছুটা বেড়েছে। এছাড়া যশোরের বাজার স্থিতিশীল রয়েছে।

শেয়ার