যশোরে থানার গেটে বিষপানে আত্মহত্যার চেষ্টা

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ যশোর কোতোয়ালি মডেল থানার গেটে বিষপান করে আত্মহত্যার চেষ্টা চালিয়েছে শাহজাহান আলী মোড়ল লিটন নামে এক ইজিবাইক চালক। পারিবারিক বিরোধের জের ধরে স্থানীয় লোকজন তাকে মারপিট করলে তিনি সোমবার রাতে থানায় অভিযোগ দিতে আসেন। কিন্তু থানা পুলিশ অভিযোগ গ্রহণ করতে অস্বীকার করায় মনের দুঃখে তিনি বিষপান করেন। পরে থানা পুলিশ তাকে যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করেছে। ভুক্তভোগী লিটন ঝিকরগাছা উপজেলার যাদবপুর গ্রামের জহির উদ্দিনের ছেলে। বর্তমান তিনি ভাতুড়িয়া গ্রামের দাড়িপাড়া এলাকার রহমত আলীর বাড়িতে ভাড়া বসবাস করেন।
অপরদিকে কোতোয়ালি মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা অপূর্ব হাসান জানিয়েছেন, লিটন থানায় কোন অভিযোগ দিতে আসেনি। পারিবারিক কলহের কারণে থানার সামনে এসে বিষপানের আত্মহত্যার চেষ্টা করে। কিন্তু পুলিশ সাথে সাথে তাকে হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করেছে।
ভুক্তভোগী লিটন জানিয়েছেন, তিনি পেশায় ইজিবাইক চালক। প্রথম স্ত্রীর অসুস্থ্যতার কারণে তার সম্মতিতেই দ্বিতীয় বিয়ে করেন। কিন্তু সম্প্রতি প্রথম স্ত্রীর সাথে বিরোধের জের ধরে দ্বিতীয় স্ত্রীর পিতার বাড়ি চলে যায়। এ নিয়ে এলাকার বকুল ও তপুসহ কয়েকজনে রোববার সন্ধ্যায় লিটনকে মারপিট করে। এ কারণে সোমবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে অভিযোগ দেয়ার জন্য লিটন কোতোয়ালি থানায় আসেন। এসময় থানার এসআই হাবিবুর রহমান তার অভিযোগ গ্রহণ করতে অস্বীকার করেন। ফলে মনের দুঃখে লিটন থানার গেটে বিষপান করে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন। এসময় থানার গেটে দায়িত্ব পালনকারী পুলিশ কনস্টেবল হাবিবুর রহমান তার হাত থেকে বিষের বোতল কেড়ে নিয়ে নেন। কিন্তু এর আগেই কিছুটা বিষ লিটনের পেটের মধ্যে চলে যায়। সাথে সাথে থানার এসআই লিটন মিয়া ভুক্তভোগী লিটনকে উদ্ধার করে যশোর ২৫০ শয্যা জেনরেল হাসপাতালে ভর্তি করেন।
মঙ্গলবার সকালে হাসপাতালে লিটনকে দেখতে আসা তার প্রথম স্ত্রী রেক্সোনা বেগম জানিয়েছেন, তাদের মধ্যে পারিবারিক সমস্যা রয়েছে। তিনি শারীরিকভাবে অসুস্থ্য। এ সুযোগে কিছুদিন আগে স্বামী লিটন মণিরামপুরের দ্বিতীয় বিয়ে করেন। তার পরকীয়া করেছেন বেশ কয়েকটি।
তিনি আরো জানিয়েছেন, কয়েকদিন আগে দ্বিতীয় স্ত্রীর সাথে লিটনের সম্পর্ক ছিন্ন হয়ে যায়। এসব বিষয় নিয়ে তাদের পারিবারিক অশান্তি রয়ে যায়। সোমবার লিটন দ্বিতীয় স্ত্রীকে এনে দেয়ার দাবি জানিয়ে প্রথম স্ত্রী রেক্সোনা বেগমকে মারপিট করে। এর পাল্টা রেক্সোনার ভাইসহ প্রতিবেশিরা লিটনকে মারপিট করে। লিটনের বিরুদ্ধে নারী নির্যাতন মামলা করা হবে বলেও তিনি জানিয়েছেন। সেই কারণে নিজেকে রক্ষা করতে আগেই লিটন স্ত্রীসহ কয়েকজনের বিরুদ্ধে কোতোয়ালি থানায় অভিযোগ দেয়ার জন্য আসেন। পরে শুনেছি থানার গেটে সে বিষ খেয়েছে। যশোর জেনারেল হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক শফিউল্লাহ সবুজ জানিয়েছেন, লিটনের পাকস্থলি থেকে বিষ বের করা সম্ভব যায়নি। তার অবস্থা আশংকাজনক। ৭২ ঘণ্টা পার না হলে কিছু বলা যাবে না। হাসপাতালের মেডিসিন ওয়ার্ডের ডাক্তার এমডি নাইম শেখ বলেছেন, ‘বিষ পান করা রোগীর অবস্থা নির্দিষ্ট করে কিছু বলা যায় না। এক ঘণ্টা পরপর পর্যবেক্ষণ করতে হয়।
কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা অপূর্ব হাসান বলেন, প্রথম স্ত্রীর মামলার ভয়ে লিটন বিষপান করেছে। তারপরও পুলিশ বিষয়টি গভীরভাবে খতিয়ে দেখছে।

শেয়ার