দিনে-দুপুরে মণিরামপুর থানার পাশে ৩টি বাসায় চুরি

নিজস্ব প্রতিবেদক, মণিরামপুর॥ মণিরামপুর থানার পাশে দিন-দুপুরে ৩ স্কুল শিক্ষক দম্পতির বাসায় চুরি সংগঠিত হয়েছে। মঙ্গলবার দিনের বেলায় পৌর শহরের দোলখোলা মোড় এবং তার পাশে এই চুরির ঘটনা ঘটে। এসময় সংঘবদ্ধ চোরেরা দরজা ও আলমারি ভেঙ্গে ১০ ভরি স্বর্ণের গহনা এবং নগদ টাকা লুট করে। দিন-দুপুরে একের পর এক চুরির ঘটনায় পৌরবাসীর মধ্যে আতংক দেখা দিয়েছে।
পৌর শহরের দোলখোলা মোড়ে সিরাজুল ইসলামের তিন তলা বাসায় বসবাসরত স্কুল শিক্ষক আব্দুর রাজ্জাক ও তার স্ত্রী জেসমিন আক্তার নুপুর জানান, তারা দুজনই স্কুল শিক্ষক। ঘটনার দিন ৮ টা ৪৫ মিনিটে বাসা থেকে বের হয়ে স্কুলে যান। বিকেলে স্কুল থেকে ফিরে এসে দেখতে পান তাদের বাসার দরজা ও আলমারি ভেঙ্গে চোরেরা সাড়ে ৯ ভরি স্বর্ণের গহনা লুট করে নিয়ে গেছে।
এর পাশেই ঠিকাদার হেকমত আলীর ৪ তলা ভবনে বসবাসরত মণিরামপুর হাসপাতালের হিসাব রক্ষক গনেশ মন্ডল ও তার স্কুল শিক্ষিকা স্ত্রী বন্ধনা সাহা থাকেন। তারাও জানান, কর্মস্থলে যাওয়ার পর চোরেরা বাসার দরজা ভেঙ্গে ২২ হাজার নগদ টাকা ও ২ টি কানের দুল নিয়ে গেছে। গত বছরের ৫ মার্চ চোরেরা একইভাবে তাদের বাসা থেকে ৬ ভরি স্বর্ণালংকার ও নগদ টাকা লুট করে বলেও তারা জানান।
জানাগেছে, ওই ৪ তলা ভবনে থানায় কর্মরত পুলিশের কয়েকজন দারোগা বসবাস করেন। এই ভবনের সামনে অবস্থিত ইঞ্জিনিয়ার মুজিবুর রহমানের তিন তলা ভবনের একটি ফ্লাটে থাকেন উপজেলার পোড়াডাঙ্গা স্কুলের প্রধান শিক্ষক আব্দুল মজিদ ও তার স্ত্রী স্কুল শিক্ষিকা রেহেনা বেগম। তারা জানান, সকালে কর্মস্থলে যাওয়ার পর চোরেরা তাদের বাসার দরজা ভেঙ্গে নগদ ৭০ হাজার টাকা লুট করে নিয়ে গেছে। এসব চুরি ঘটনার ৭ দিন আগে পৌরশহরের এনজিও কর্মকর্তা বলাই বোসের বাসায় চুরি হয়।
চুরি হওয়া তিন বাসার ক্ষতিগ্রস্ত শিক্ষকরা বলেন, দিন-দুপুরে এভাবে চুরি হলে তারা কিভাবে বসবাস করবেন। এদিকে দিন-দুপুরে একের পর এক সিরিজ চুরির ঘটনায় পৌরবাসীর মধ্যে আতংক দেখা দিয়েছে।

শেয়ার