বর্ষবরণের আয়োজন নিয়ে সংবাদ সম্মেলন

উদীচীর ৪ সদস্য পাচ্ছেন বিশেষ সম্মাননা বিকালে জমকালো অনুষ্ঠান করবে শেকড়

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ কাল পহেলা বৈশাখ। বাংলা নববর্ষ ১৪২৬’র পয়লা দিন। এদিন বাঙালি সংস্কৃতির ঐতিহ্যবাহী বর্ষবরণ উৎসব। দেশের সাংস্কৃতিক রাজধানী যশোরে পয়লা বৈশাখের দিন বর্ষবরণ উৎসব উদ্যাপনের জন্য ব্যপক প্রস্তুতি নিয়েছে বিভিন্ন সাংস্কৃতিক সংগঠন। উৎসবে আমন্ত্রণ জানাতে সংগঠনগুলো বিলিবন্টন করছে নিমন্ত্রণপত্র। বর্ষবরণ উৎসব আয়োজনের এসব কর্মযজ্ঞের মধ্যে শুক্রবার পৃথক দুটি সংবাদ সম্মেলন করেছে যশোরে দুটি সাংস্কৃতিক সংগঠন উদীচী ও শেকড়। এর মাধ্যমে সংগঠন দুটি গণমাধ্যমের সামনে তাদের বর্ষবরণ অনুষ্ঠানের আয়োজন সম্পর্কে বিস্তারিত তুলে ধরে।


গতকাল দুপুর ১২ টায় যশোর জেলা কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে উদীচী। সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, ১৯৭৮ সাল থেকে বর্ষবরণ উৎসব করছে উদীচী। ৪৪ বছরের ধারাবাহিকতায় যশোর পৌর উদ্যানের সবুজ চত্ত্বরে এবারও বর্ষবরণ উৎসব অনুষ্ঠিত হবে। সকাল ৬টা ৩১ মিনিটে পুরাতন দিনের অন্ধকারকে পেছনে ফেলে, বৈশাখের পূণ্য প্রভাতে নতুন আলোককে ভৈরবী রাগ ও তবলার লহরার মধ্য দিয়ে বৈশাখের প্রথম প্রহরকে আহবান করা হবে কবি গুরুর ’এসো হে বৈশাখ’ ও ’ঐ বুঝি কাল বৈশাখী’ গান দিয়ে। বেলা সাড়ে ১১ টা পর্যন্ত বর্ষবরণ অনুষ্ঠান চলবে।
শিশুতোষ অনুষ্ঠান, হারানো দিনের বাংলা গান, লোকসঙ্গীত, আধুনিক সংগীত ও লোকনৃত্য, ইতিহাস ভিত্তিক গীতি আলেখ্য দিয়ে বর্ষবরণ অনুষ্ঠানের ডালি সাজানো হয়েছে বলে সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়। এসময় বলা হয় বরাবরের মতন এবারও ডা. কাজী রবিউল হক নববর্ষ পদক প্রদান করা হবে। এবার পদক পাচ্ছেন উদীচীর যশো জেলা সভাপতি নাট্য পরিচালক ও নাট্যাভিনেতা ডিএম শাহিদুজ্জামান। এছাড়াও উদীচী পরিবারের ৪ সদস্যকে এবার বিশেষ সম্মাননা জানানো হবে। উদীচী যশোরের উপদেষ্টা স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য্য, কবি ও সাংবাদিক ফখরে আলম, উদীচী পরিচালিত মুনসী রইস উদ্দিন সংগীত আকাদেমীর ছাত্রী ওয়াজীহা তাসনী ও ২০১৮ সালে পিএসসি পরীক্ষায় যশোর বোর্ডে ট্যালেন্টপুলে বৃত্তি প্রাপ্ত তারিন তাসমিম সাইমাকে সম্মাননা জানানো হবে। গোটা অনুষ্ঠানে নিরাপত্তার দায়িত্ব পালন করবে আইনশৃংখলা বাহিনীর পাশাপাশি নিজস্ব স্বেচ্ছাসেবকদল বলে জানান উদীচী নেতৃবৃন্দ।
সাংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদুর রহমান খান বিপ্লব। এসময় উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের সভাপতি ডিএম শাহিদুজ্জামান, উপদেষ্টা অধ্যাপক সন্তোস হালদার, সৌমেন মুখার্জি, সহসভাপতি আমিনুর রহমান হিরু, সহসাধারণ সম্পাদক রাজিবুল ইসলাম টিলন, কোষাধ্যক্ষ হুমায়ুন কবীর হুমা, আলমগীর কবীর, শুভংকর গুপ্ত প্রমুখ।
এদিকে গতকাল বেলা এগারটায় শেকড় যশোর তাদের বর্ষবরণ আয়োজন সম্পর্কে জানান দিতে যশোর ইনস্টিটিউটের নাট্যকলা সংসদের ভূপতি মঞ্চে সংবাদ সম্মেলন করে। এসময় জানানো হয়, শহরের চারখাম্বা মোড় এলাকায় হোটেল ওরিয়নের সামনের আঙিনায় এবারের বর্ষবরণ অনুষ্ঠান করবে সংগঠনটি। একসময় সংগঠনটির বর্ষবরণ অনুষ্ঠান পৌর উদ্যানে অনুষ্ঠিত হতো। কিন্তু পরে সেখান থেকে বর্ষবরণ অনুষ্ঠানের সুযোগ বঞ্চিত হয় শেকড়। এরপর গতবছর মুন্শি মেহেরুল্লাহ ময়দানের (টাউন হল ময়দান) শতাব্দি বটতলের রওশন আলী মঞ্চে অপর একটি সাংস্কৃতিক সংগঠনের সাথে সময় ভাগাভাগি করে বর্ষবরণ অনুষ্ঠান করে শেকড়। কিন্তু এবার সেই সাংস্কৃতিক সংগঠনটির সাথে সময় ভাগাভাগি করে অনুষ্ঠান করার মৌখিক চুক্তি থাকলেও শেষ পর্যন্ত তারা কথা রাখেনি। ফলে টাউন হল ময়দানের রওশন আলী মঞ্চে অনুষ্ঠান আয়োজনের সুযোগ বঞ্চিত হয়ে এবারকার বর্ষবরণ অনুষ্ঠানের জন্য মুজিব সড়কের ওয়াইডব্লুউ সি এ নার্সারী স্কুল মাঠটি ভেন্যু হিসেবে বেছে নেওয়া হয়। কিন্তু বৃষ্টির পানি জমে মাঠে কাদাপানি হওয়ায় মাঠটি অনুষ্ঠান করার অনুপযোগী হয়ে পড়ে। শেষ পর্যায়ে হোটেল ওরিয়ন কর্র্তৃপক্ষ তাদের আঙ্গিনায় অনুষ্ঠান করার অনুমতি দেওয়ায় সেখানে অনুষ্ঠান করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সংগঠনটি।
সংবাদ সম্মেলণে বলা হয়, সংগঠনটির শিল্পী ও কর্মীরা মিলে নিজ হাতে আমন্ত্রণপত্র তৈরি করেছে। কিন্তু সম্প্রতি হওয়া ঝড় বৃষ্টিতে অধিকাংশ নিমন্ত্রণপত্র নষ্ট হয়ে গেছে। যে কারণে ইচ্ছে থাকলেও সকলের হাতে নিমন্ত্রণপত্র পাঠাতে পারেনি সংগঠনটি। বর্ষবরণের দিন সকাল ৮ টায় জেলা প্রশাসনের র‌্যালিতে অংশ গ্রহণ করবে শেকড়। এরপর থাকছে মিষ্টিমুখ ও পান্তা ভাতের আয়োজন। এদিন বিকেল ৩ টায় শুরু হবে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। অনুষ্ঠানে গীতি আলেখ্য ‘৭৫ বঙ্গবন্ধু’, একক ও দলীয় সঙ্গীত, নৃত্য, পটগান, অষ্টক, জব্বার মিয়ার বায়োস্কোপ, রুপবান পালা, বাউল গান ও নাটক পরিবেশিত হবে। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের সভাপতি ড. অ্যাঞ্জেলা গোমেজ, সাধারণ সম্পাদক রওশন আরা রাসু, বর্ষবরণ উদ্যাপন পরিষদের আহবায়ক নূর ইমাম বাবুল, অমল কুমার বোস প্রমুখ।

SHARE