যশোরে প্রেমের বিয়ে বিচ্ছেদ করিয়ে লাভবান হলো দারোগা!

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ যশোরে প্রেমের বিয়ে মানতে পারেনি মেয়ের পরিবার। এজন্য ছেলের পিতা-মাতা ও খালাকে পুলিশ দিয়ে আটক করিয়ে রীতিমতো হেস্তানেস্তা করেছেন মেয়ে পক্ষ। পরে পুলিশ ছেলেকে হাজির করে বিয়েও বিচ্ছেদ করেছে। আর এসব কাজে বেশ পটু সদরের চানপাড়া পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ এসআই মঞ্জুর আলী খান পকেটে তুলেছেন মোটা অংকের টাকা। শুধু ছেলে পক্ষের কাছ থেকে নিয়েছেন ২০ হাজার টাকা। গত বৃহস্পতিবার এ ঘটনা ঘটে।
এলাকাবাসীর ভাষ্য মতে, সদর উপজেলার দাইতলা গ্রামের আজগর আলীর ছেলে শাহিন হোসেন একই গ্রামের ২০১৯ সালের এসএসসি পরীক্ষার্থীকে বাড়িতে প্রাইভেট পড়াতেন। এরপর তাদের দুইজনের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক হয়ে যায়। এক পর্যায়ে মাস দুয়েক আগে শাহিন মেয়েটিকে গোপনে বিয়ে করেন। গত বুধবার মেয়েটি শাহিনের বাড়িতে গিয়ে হাজির হয়। কিন্তু মেয়েদের তুলনায় ছেলেদের আর্থিক অবস্থা ভাল না হওয়ায় ওই বিয়ে মানতে নারাজ মেয়ের পরিবার। ফলে মেয়ের পিতা বাদী হয়ে চানপাড়া পুলিশ ক্যাম্পে অভিযোগ করেন। ওই অভিযোগের ভিত্তিতে বৃহস্পতিবার ভোর রাতে ক্যাম্পের ইনচার্জ এসআই মঞ্জুর আলী খান শাহিনের পিতা আজগর আলী, মাতা ছিয়ারন বেগম এবং তার খালাকে আটক করেন। দীর্ঘ সময় দেনদরবারের পরে শেষ পর্যন্ত শাহিনের পরিবারের কাছ থেকে ২০ হাজার টাকা হিস্যা নেন। পরে আটক তিনজন এবং শাহিনকে লোক মারফত থানায় হাজির করে বিয়েটির বিচ্ছেদ ঘটান ওই দারোগা। বিয়ে করে শাহিনকে না পেয়ে তার পিতা-মাতাকে আটক এবং ২০ হাজার টাকায় রফার ঘটনা নিয়ে এলাকার নানা ধরনের মুখরোচক আলোচনা শুরু হয়েছে। তবে টাকা লেনদেনের ব্যাপারে এসআই মঞ্জুর আলী খান অস্বীকার করেছেন।

শেয়ার