‘২৫ মিনিটের ভুল’ থেকে শিখেছে বাংলাদেশ

সমাজের কথা ডেস্ক॥ পল স্মলি ‘২৫ মিনিটের ভুল’ বললেও মূলত নেপাল ম্যাচের শুরুর ২৮ মিনিটে খাওয়া তিন গোল নিয়েই হচ্ছে যত আলোচনা। তাতে চাপা পড়ে যাচ্ছে বাকিটা সময়ে মাসুরা পারভীন-রুপনা চাকমাদের দারুণ প্রতিরোধ, সিরাত জাহান স্বপ্নার শটে বল ক্রসবার কাঁপিয়ে ফিরে আসার মুহূর্তগুলো। বাফুফের টেকনিক্যাল অ্যান্ড স্ট্রেটেজিক ডিরেক্টর স্মলি ভাবতে চান ‘ভালো সময়টুকু’ নিয়ে। ভারতের বিপক্ষে সেমি-ফাইনাল সামনে রেখে দল ওই ভুল থেকে শিখেছে বলেও মনে করেন এই অস্ট্রেলিয়ান।

নেপালের বিরাটনগরের শহীদ রঙ্গসালা স্টেডিয়ামে গত শনিবার সাফ চ্যাম্পিয়নশিপে স্বাগতিকদের কাছে ৩-০ গোলে হারে বাংলাদেশ। আগামী বুধবার সেমি-ফাইনালে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন ভারতের মুখোমুখি হবে দল।

নেপাল ম্যাচে ষষ্ঠ মিনিটে ডিফেন্ডার মাসুরার আত্মঘাতী গোলে পিছিয়ে পড়ে দল। ২৩ মিনিটের গোলটি হয়েছিল মাসুরা-গোলরক্ষক রুপনার বোঝাপড়ার ঘাটতিতে আর পাঁচ মিনিট পরের গোলটি হয় আরেক ডিফেন্ডার আঁখি খাতুনের প্রতিরোধহীন ভূমিকায়। বাকিটা সময়ে দৃঢ়তাপূর্ণ রক্ষণে নেপালকে আটকে রাখে ডিফেন্ডাররা।

ভারতের বিপক্ষে সেমি-ফাইনাল সামনে রেখে স্মলি ওই ম্যাচের ইতিবাচক দিকগুলো নিয়ে ভাবার পক্ষে।

“আমি মনে করি গত দুইটা ম্যাচ নিয়ে সবাই খুশি। মেয়েরা ভুটানের বিপক্ষে খুবই ভালো খেলেছে। নেপালের বিপক্ষে ম্যাচে শুরুর ওই ২৫ মিনিট বাদ দিলে বাকিটা সময় খুবই অভিজ্ঞ এবং শক্তিশালী দলের বিপক্ষে মেয়েরা খুবই ভালো খেলেছে। মেয়েরা ওই ভুল থেকে শিখেছে এবং আত্মবিশ্বাস নিয়ে সেমি-ফাইনাল খেলতে উন্মুখ হয়ে আছে।”

“গত ম্যাচে ভুলগুলোর পর মেয়েরা দমে গিয়েছিল। ভুলগুলো নিয়ে নিজেদের মধ্যে কথা বলছিল। বিরতির সময় আমরা মেয়েদের বললাম প্রথমার্ধে যা হওয়ার হয়েছে, সেটা ভুলে দ্বিতীয়ার্ধ নিয়ে ভাবো। কিছু কৌশল বদল আর ওই আলোচনার ফলও পাওয়া গেল।”

“নেপালের বিপক্ষে আমরা দ্বিতীয়ার্ধে সুযোগ তৈরি করেছিলাম এবং রক্ষণ সামলে তাদেরকে সমস্যায় ফেলেছিলাম, যেটা দলের জন্য খুবই ভালো ব্যাপার। টুর্নামেন্টের আরেকটি ভালো দল ভারতের বিপক্ষে সেমি-ফাইনালের আগে আমাদের সামনে তাকানো উচিত।”

সাফে কখনও হারের স্বাদ পায়নি প্রতিযোগিতার চারবারের চ্যাম্পিয়ন ভারত। ২১ ম্যাচের ২০টিতে জয় তাদের; একমাত্র ড্র বাংলাদেশের সঙ্গে। ভারতকে শক্তিশালী মানলেও সাবিনা-তহুরাদের জন্য সেমি-ফাইনাল নেপাল ম্যাচের মতো চ্যালেঞ্জিং হবে না বলেও মনে করেন স্মলি।
“আমার মতে এখানে নেপাল সেরা দল। পার্থক্য গড়ে দেওয়ার মতো খেলোয়াড় আছে তাদের। নেপালের চেয়ে ভারত দুর্বল কিন্তু তাদের দক্ষ খেলোয়াড় আছে। আমি নিশ্চিত নই তাদের নেপালের মতো পার্থক্য গড়ে দেওয়ার মতো খেলোয়াড় আছে কিনা।”

২৪ ঘণ্টার ব্যবধানে দুই ম্যাচ খেলার ক্লান্তি ঝেড়ে ফেলতে রোববার সাবিনা-মৌসুমীরা হোটেলে সময় কাটিয়েছেন। হাঁটুর চোটের কারণে গ্রুপ পর্বের দুই ম্যাচে খেলতে না পারা কৃষ্ণা রানী সরকার সতীর্থদের সঙ্গে সুইমিং আর হাল্কা স্ট্রেচিং করেছেন। ভারত ম্যাচে এই মিডফিল্ডারকে পাওয়ার আশা স্মলির।

“সে পুনর্বাসন প্রক্রিয়ার মধ্যে আছে এবং আমরা চেষ্টা করছি তাকে সেমি-ফাইনালের জন্য প্রস্তুত করতে। সে ব্যক্তিগত দক্ষতাসম্পন্ন খেলোয়াড়। আশা করি তাকে পাওয়া যাবে।”

বয়সভিত্তিক পর্যায়ে আক্রমণাত্মক খেলে অভ্যস্ত বাংলাদেশ। এ পর্যায়ে রক্ষণে তেমন কোনো পরীক্ষার মুখোমুখি হতে দেখা যায় না মেয়েদের। রক্ষণ সামলানোর অভ্যাস না থাকাটা সিনিয়র পর্যায়ে সমস্যা তৈরি করে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে হ্যাঁ-সূচক উত্তরই দিয়েছেন স্মলি।

“হ্যাঁ আমিও তাই মনে করি। আসলে অনূর্ধ্ব-১৪ থেকে অনূর্ধ্ব-১৯ পর্যায়ে তারা পরিপক্ক হয়ে ওঠে না। পরিপক্ক হতে তাদের আরও সময় প্রয়োজন।”

শেয়ার