শ্রীলঙ্কাকে উড়িয়ে দিল দ.আফ্রিকা

সমাজের কথা ডেস্ক॥ ইসুরু উদানার বিস্ফোরক ব্যাটিংয়ে দুইশ রানের কাছে গেল শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ। সেই রান নিয়ে খুব একটা লড়াই করতে পারেনি সফরকারীরা। কুইন্টন ডি ককের ফিফটিতে আরেকটি বড় জয় তুলে নিয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকা।

চতুর্থ ওয়ানডেতে ৬ উইকেটে জিতে পাঁচ ম্যাচের সিরিজে ৪-০ ব্যবধানে এগিয়ে গেছে ফাফ দু প্লেসির দল। ১৯০ রানের লক্ষ্য ১০৩ বল বাকি থাকতে ছুঁয়ে ফেলে স্বাগতিকরা।

পোর্ট এলিজাবেথের সেন্ট জর্জেস পার্কে বুধবার টস হেরে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা ভালো হয়নি শ্রীলঙ্কার। ১৯ রানের মধ্যে ফিরে যান উপুল থারাঙ্গা ও ওশাদা ফার্নান্দো। থিতু হয়েও নিজেদের ইনিংস বড় করতে পারেননি অভিশকা ফার্নান্দো ও কুসল মেন্ডিস।

অভিষেকে গোল্ডেন ডাকের স্বাদ পান প্রিয়ামাল পেরেরা। দলের বিপদে এগিয়ে আসতে পারেননি ধনাঞ্জয়া ডি সিলভা ও থিসারা পেরেরা।

১৩১ রানে ৯ উইকেট হারিয়ে ফেলা দলকে দুইশ রানের কাছে নিয়ে যান উদানা। স্বাগতিক বোলারদের ওপর চড়াও হয়ে ৫৭ বলে চার ছক্কা ও সাত চারে খেলেন ৭৮ রানের ঝড়ো এক ইনিংস।

দশম উইকেটে কাসুন রাজিথার সঙ্গে তার ৫৮ রানের জুটি ম্যাচে শ্রীলঙ্কার সেরা। সেই জুটিতে রাজিথার অবদান ৯ বলে শূন্য।

আরও একবার ব্যর্থ রিজা হেনড্রিকস। শুরুতেই ফিরেন বাজে সময় কাটানো এই ওপেনার। দলে ফেরা এইডেন মারক্রাম সম্ভাবনাময় ইনিংস বড় করতে পারেননি। ফিরে যান তিন চারে ২৯ রান করে।

ছন্দে থাকা ডি কক তুলে নেন আরেকটি ফিফটি। ৫৭ বলে খেলা তার ৫১ রানের ইনিংস গড়া ৬ চারে। ঝড়ো ব্যাটিংয়ে এগোনো দু প্লেসিকে থামান ডি সিলভা। দক্ষিণ আফ্রিকা অধিনায়ক ৩৮ বলে পাঁচ চার ও এক ছক্কায় করেন ৪৩ রান।

জেপি দুমিনিকে নিয়ে বাকিটা সহজেই সারেন ডেভিড মিলার। সাবধানী ব্যাটিংয়ে একটি করে ছক্কা-চারে তিনি করেন ২৫ রান। ক্রিজে গিয়েই বোলারদের ওপর চড়াও হওয়া দুমিনি ২১ বলে করেন ৩১ রান।

নয় নম্বরে নেমে দলের মান বাঁচানো ঝড়ো ফিফটির জন্য ম্যাচ সেরার পুরস্কার জেতেন উদানা।

আগামী শনিবার কেপ টাউনে হোয়াইটওয়াশ এড়ানোর লক্ষ্যে মাঠে নামবে শ্রীলঙ্কা।

SHARE