ডিজিটাল এক্সরে, আল্ট্রাসোনসাউন্ডসহ আধুনিক মেশিন এসে পৌছেছে

যশোর জেনারেল হাসপাতাল

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের ডিজিটাল এক্সরে, আল্ট্রাসোন সাউন্ডসহ অতি প্রয়োজনীয় আধুনিক মেশিন এসে পৌছেসে। ঢাকা স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের কেন্দ্রয় স্টোর থেকে বুধবার সকালে হাসপাতালের স্টাফ শাইফুল ইসলাম এই মেশিন হাসপাতালে নিয়ে আসেন। কিন্তু আমলাতান্তিক জটিলতার কারণে সিটি স্ক্যান মেশিনটি পাওয়া যায়নি। কাগজপত্র ঠিক করে চলতি মার্চের শেষে সিটি স্ক্যান মেশিনও হাসপাতালে আসবে বলে নিশ্চিত করেছেন হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. আবুল কালাম আজাদ লিটু। আর এই মেশিন আসার মধ্যদিয়ে যশোরবাসির দীর্ঘদিনের স্বপন পূরণ হয়েছে। এখন স্থাপন হলে মেশিনগুলোর সুবিদা এপ্রিল-মে মাস থেকে যশোরবাসি পাবেন বলে আশাবাদি তত্ত্বাবধায়ক।
জানা যায়, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে সিটিস্ক্যান মেশিনসহ প্রয়োজনীয় সাতটি মেশিন ও একটি এসি বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। এ সংক্রান্তু একটি সংবাদ গত ১৯ ফেব্রুয়ারি দৈনিক সমাজের কথায় প্রকাশিত হয়। সংবাদের প্রেক্ষিতে হাসপাতালের স্টোর কিপার শাইফুল ইসলাম মেশিন গুলো আনতে যান। সে খানে মন্ত্রণালয়ের কাগজপত্র ঠিক ঠাক করে বুধবার সকালে ডিজিটাল ৫শ’ এমএ রেডিওগ্রাফি এক্সরে মেশিন, রক্তের হিমগ্লোবিন নির্ণয়ের জন্য ডিজিটাল এনালাইজার অটো মেশিন, আল্ট্রাসাউন্ড ডিজিটাল মেশিন, হৃদরোগীদের স্টোক ও হার্টঅ্যাটাক হয়েছে কি না পরীক্ষার জন্য রক্তের লিটরবেঞ্চ মেশিন, মাইক্রোস্কপ মেশিন, রক্তের রাসায়নিক বিভিন্ন পরীক্ষার জন্য ক্যামিস্ট্রি এনালাইজার মেশিন এবং হাসপাতালের ওষুধাগারের জন্য একটি আড়াই টনের এসি নিয়ে আসেন।
এ ব্যাপারে হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. আবুল কালাম আজাদ বলেন, মেশিন গুলো বুধবারে হাসপাতালে এসে পৌছেসে। এখন মার্চের শুরু থেকে এই মেশিন গুলো স্থাপনের কাজ শুরু হবে। স্থাপন হওয়ার পরে আগামি এপ্রিলে অথবা মে থেকে এই মেশিনগুলো সুবিধা সাধারণ রোগীরা পাবে। তবে আমলাতান্ত্রিক জটিলতার কারনে সিটি স্ক্যান মেশিন আসেনি। জটিলতা সমাধান করে মার্চের শেষে সিটি স্ক্যান মেশিনও হাসপাতালে সংযোজন হবে।

শেয়ার