পরীক্ষার আগে অনৈতিক পথে হাঁটবেন না: অভিভাবকদের শিক্ষামন্ত্রী

সমাজের কথা ডেস্ক॥ এসএসসি পরীক্ষায় প্রশ্ন ফাঁস রুখতে তৎপর শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি এজন্য অভিভাবকদের সহায়তা চেয়ে তাদের অনৈতিক পথ না খোঁজার আহ্বান জানিয়েছেন।
মঙ্গলবার চট্টগ্রামের এম এ আজিজ স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ জাতীয় স্কুল, মাদ্রাসা ও কারিগরি শিক্ষা ক্রীড়া সমিতি আয়োজিত ৪৮তম জাতীয় ক্রীড়া প্রতিযোগিতার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে একথা বলেন তিনি।

এই মাসেই শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব নেওয়া দীপু মনি বলেন, “সামনে এসএসসি পরীক্ষা শুরু হতে যাচ্ছে। আমাদের সবার জন্যই এটা পরীক্ষা, সে পরীক্ষা যেন প্রশ্নফাঁসমুক্ত ও নকলমুক্ত হয়।”

অভিভাবকদের উদ্দেশে তিনি বলেন, “পরীক্ষার আগে আপনারা কোনো অনৈতিক পথের খোঁজে নামবেন না।

”অনৈতিকতার পথে হেঁটে কোনো ভালো ফল পাওয়া যায় না। আমরা চেষ্টা করব কোনো দুর্বৃত্ত যেন পরীক্ষা ঘিরে কোনো অপকর্ম করতে না পারে।”

গত কয়েক বছর ধরে পরীক্ষার সকালে প্রশ্নফাঁস ছাড়াও ডিজিটাল ডিভাইসের মাধ্যমে পরীক্ষার হলে জালিয়াতির ঘটনায় তোপের মুখে ছিল সরকার।

বিভিন্ন পাবলিক পরীক্ষার সকালে কেন্দ্রের বাইরে জড়ো হয়ে শিক্ষার্থীদের ফেইসবুকসহ বিভিন্ন মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া প্রশ্ন ও তার উত্তর জানতে মোবাইলে চোখ বোলাতে দেখা যায়। অনেক অভিভাবক সন্তানকে ফাঁস হওয়া প্রশ্ন ও তার উত্তর পেতে সহায়তা করেন। তবে এ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেন অনেক শিক্ষার্থী ও অভিভাবক।

পরীক্ষা ফাঁসের পেছনে বিভিন্ন কোচিং সেন্টারের হাত থাকার কথাও উঠে এসেছে বিভিন্ন সময়। এবার পরীক্ষা শুরুর আগে থেকে এক মাস সব কোচিং বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী।

তার মতে, পরীক্ষা ও অভিভাবকদের প্রশ্ন পরীক্ষার আগে হাতে পাওয়ার ‘চেষ্টা না থাকলে’ প্রশ্নফাঁসের ঘটনা কমে যাবে।

“যদি চেষ্টা না থাকে প্রশ্ন পাবার তাহলে যারা অপকর্ম করবে তারাও আগ্রহী হবে না। শিক্ষা ব্যবস্থার কিছু ক্রুটি-বিচ্যুতি দূর করতে হবে। শুধু সরকার নয়, প্রতিষ্ঠান, অভিভাবক, শিক্ষার্থী, শিক্ষক সবার এক্ষেত্রে ভূমিকা রাখতে হবে।

আগামী ২ ফেব্রুয়ারি থেকে ২৫ ফেব্রুয়ারি হবে এসএসসির তত্ত্বীয় পরীক্ষা। আর ২৬ ফেব্রুয়ারি থেকে ১২ মার্চের মধ্যে সংগীত ও অন্য বিষয়ের ব্যবহারিক পরীক্ষা নেওয়া হবে।

শেয়ার