রাজশাহীর আরেকটি জয়

সমাজের কথা ডেস্ক॥ বিপিএলে ঢাকায় ফিরে জয়ের ধারাতেই রইলো রাজশাহী কিংস। তাদের বড় সংগ্রহে চাপা পড়ে ৩৮ রানে হেরেছে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স।
রাজশাহীর ছুঁড়ে দেওয়া ১৭৭ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে লড়াইয়ের ঝাঁজ তুললেও শেষ পর্যন্ত রাজশাহীর নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে পারেনি কুমিল্লা। ব্যাটসম্যানদের লম্বা ইনিংস না খেলার ব্যর্থতায় কুমিল্লা ভুগেছে শেষ দিকে। বিশেষ করে শেষ দিকে মোস্তাফিজুর রহমানের ওভারে চাহিদা মিটিয়ে রান তুলতে পারেনি কুমিল্লার ব্যাটসম্যানরা। ১১০ রানে ৬ উইকেট পড়ে যাওয়ার পর শহীদ আফ্রিদি দৃষ্টি নন্দন শট খেলে ম্যাচ বাঁচিয়ে রাখার চেষ্টা করেছিলেন। এরপর মোস্তাফিজ নিজের ওভারে আফ্রিদিকে রুখে দিলে ১৮তম ওভারে রাব্বির বলে মেরে খেলতে গিয়ে সর্বনাশ হয় কুমিল্লার। একে একে ফিরে যান আফ্রিদি (১৯), লিয়াম ডসন (১৭) ও মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন। ১৮.২তম ওভারে মোস্তাফিজ মেহেদী হাসানকে বিদায় দিলে ১৩৮ রানে অলআউট হয় ইমরুল কায়েসের দল।
৩ ওভারে ১০ রানে ৪ উইকেট নিয়ে সেরা বোলার কামরুল ইসলাম রাব্বি। দুটি করে উইকেট নেন রায়ান টেন ডেসকাট ও কায়েস আহমেদ। কায়েস দুটি উইকেট নিলেও ছিলেন সবচেয়ে ব্যয়বহুল। ৪ ওভারে দেন ৪৬ রান।
তার আগে টস হেরে ব্যাট করে মৌসুমে নিজেদে দলীয় সর্বোচ্চ স্কোর গড়ে রাজশাহী কিংস। কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের বিপক্ষে ৩ উইকেটে ১৭৬ রানের বড় সংগ্রহ দাঁড় করায় তারা লরি ইভান্স আর ডেসকাটের ঝড়ো ব্যাটিংয়ে।
শুরুতে ২৮ রানে তিন উইকেট তুলে নিয়ে প্রথম ১০ ওভারে তাদের বেঁধে রাখার চেষ্টায় সফল ছিলো কুমিল্লা। ওপেনার শাহরিয়ার নাফীস, মেহেদী মিরাজ ও মার্শাল আইয়্যুবরা বিদায় নিলে শ্লথ ছিলো রানের গতি। তবে অপর প্রান্ত আগলে ছিলেন লরি ইভান্স। রায়ান টেন ডেসকাটকে সঙ্গে নিয়ে ধীরে ধীরে হাত খুলে মেরেছেন। ৮৩ বলে ১৪৮ রানের জুটিতে ১৭৬ রান তুলে তারা স্কোর বোর্ডে। এই ঝড় তুলে এবারের মৌসুমের প্রথম সেঞ্চুরিও তুলে নিয়েছেন ইভান্স। ৬২ বলে ১০৪ রানে অপরাজিত ছিলেন তিনি। তার ইনিংসে ছিলো ৯টি চার ও ৬টি ছয়। অপর দিকে সঙ্গী ডেসকাটও ছিলেন আগ্রাসী। ৪১ বলে ৫৯ রানের ইনিংস খেলেন ডেসকাট। তার ইনিংসে ছিলে ২টি চার ও ৩ ছয়।

কুমিল্লার পক্ষে দুটি উইকেট নেন লিয়াম ডসন। ঝড়ো গতির সেঞ্চুরি হাঁকিয়ে ম্যাচসেরা ইভান্স।

শেয়ার