যশোর-খুলনা মহাসড়ক উন্নয়ন নির্বিঘ্ন করতে ভ্যান রিক্সা চলাচল বন্ধের ঘোষণা

অভয়নগর (যশোর) প্রতিনিধি॥ যশোর-খুলনা মহাসড়কের উন্নয়ন কাজে সহযোগিতায় অভয়নগর উপজেলা ও নওয়াপাড়া পৌর ভ্যান-রিক্সা শ্রমিক ইউনিয়ন সহযোগীতার হাত বাড়িয়ে দিয়ে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। উন্নয়নমূলক এ কাজের প্রধান প্রতিবন্ধকতা দুরীকরণে মহাসড়কে তারা ভ্যান-রিক্সা চলাচল বন্ধ রেখেছে।
ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান তমা গ্রুপের পক্ষ থেকে জানা যায়, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে থেকে যশোর-খুলনা মহাসড়কের প্রায় ৪০ কিলোমিটারের কাজ শুরু করে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান মাহাবুব ব্রাদার্স। শুরু থেকে এ কাজে ধীরগতির প্রধান প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে আসছে যানজট। তবে যানজট নিরসনে ও নিয়ন্ত্রণে উভয় প্রতিষ্ঠানের নিরাপত্তা কর্মীরা কাজ করে চলেছেন। তারপরও অবৈধ তিন চাকার যানবাহন চলাচলের ফলে যানজট সৃষ্টি হয়ে আসছে। যার নিয়ন্ত্রণে নওয়াপাড়া হাইওয়ে থানা পুলিশের সহযোগিতা নেয়া হয়েছে। দুই ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে ভ্যান-রিক্সা শ্রমিক ইউনিয়নের দৃষ্টান্তকারী এ পদক্ষেপকে সাধুবাদ জানানো হয়েছে। সাথে সাথে কাজের গতি বৃদ্ধি ও দ্রুত সমাপ্তির জন্য মহাসড়কে চলাচলরত অন্যান্য তিন চাকার যানবাহন না চলাচলে স্ব স্ব ইউনিয়ন কর্তৃপক্ষের সহযোগিতা কামনা করা হয়েছে।
এ ব্যাপারে অভয়নগর উপজেলা ও নওয়াপাড়া পৌর ভ্যান-রিক্সা শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক লিটন শেখ বলেন, তাদের ইউনিয়নের পক্ষ থেকে রোববার সকাল থেকে মহাসড়কে ভ্যান-রিক্সা চলাচল বন্ধে মাইকিং করা হচ্ছে। নওয়াপাড়া বেঙ্গল গেট হতে রাজঘাট পর্যন্ত মহাসড়কে তাদের ইউনিয়নের কোন ভ্যান-রিক্সা চলাচল করতে পারবে না। নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে যারা মহাসড়কে চলাচল করবে তাদের বিরুদ্ধে হাইওয়ে পুলিশ কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করলে ইউনিয়নের পক্ষ থেকে সহযোগিতা করা হবে না। তবে পৌরসভার বাইপাস সড়কসহ আভন্তরীণ সকল সড়কে ভ্যান-রিক্সা চলাচল করতে পারবে। এ ব্যাপারে ইউনিয়ন কর্তৃপক্ষের সার্বিক সহযোগিতা থাকবে বলে তিনি জানান।
নওয়াপাড়া হাইওয়ে থানার ওসি আতাউর রহমান ভ্যান-রিক্সা শ্রমিক ইউনিয়নের মাইকিং ও তাদের এ উদ্যোগের প্রতি সমর্থন জানিয়ে বলেন, অন্যান্য তিন চাকার সংগঠনের পক্ষ থেকে অচিরেই এ ধরণের পদক্ষেপ গ্রহণ করে মহাসড়কের উন্নয়ন কাজে সহযোগিতা করবে। অন্যথায় অবৈধ এ যানবাহনগুলোর বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। তিনি আরও বলেন, মহাসড়কের যানজট নিরসন ও উন্নয়ন কাজ দ্রুত সমাপ্তির লক্ষ্যে প্রতিদিন এই ধরণের যানবাহনের বিরুদ্ধে অভিযান চলছে এবং তা অব্যাহত থাকবে।

শেয়ার