অমল সেন মেলায় হারিয়ে যাওয়া বায়োস্কোপ দেখার ভিড়

নড়াইল প্রতিনিধি॥ কমরেড অমল সেনের ১৬তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষ্যে নড়াইলের সীমান্তবর্তী এলাকা বাকড়িতে অনুষ্ঠিত হলো দু’দিন ব্যাপি অমল সেন মেলা। গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী এই মেলাতে আশেপাশের কয়েকটি জেলা থেকে নারী-পুরুষ ও শিশুরা ভিড় করেছে। এবারের মেলাতে বিশেষ নজর কেড়েছে গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী বায়োস্কোপ। আধুনিক সমাজ থেকে হারিয়ে যাওয়া এই বায়োস্কোপ দেখতে ভিড় করেছে কোমলমতি শিশু থেকে শুরু করে বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষ।
জানা গেছে, প্রতি বছরের ন্যায় এবছরও কমরেড অমল সেন স্মৃতি রক্ষা কমিটির আয়োজনে নড়াইলের সীমান্তবর্তী এলাকা বাকড়িতে ১৭ জানুয়ারি থেকে শুরু হয় ২দিন ব্যাপী অমল সেন মেলা। মেলা আয়োজন কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম জানান, এ মেলায় গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী বিভিন্ন পণ্যের শতাধিক স্টল নিয়ে বসে দোকানীরা। মেলাতে শিশুদের বিনোদনের জন্য রয়েছে নাগরদোলা, সাপ খেলাসহ বিভিন্ন ব্যবস্থা ছিল। এবারের মেলায় শিশুসহ দর্শনার্থীদের নজর কেড়েছে গ্রামবাংলা থেকে হারিয়ে যাওয়া বায়োস্কোপ দেখা। এই বায়োস্কোপ দেখতে মেলাতে ভিড় করেছে শিশু-কিশোর থেকে শুরু করে বিভিন্ন বয়সের মানুষ। জীবনে প্রথম বারের মত বায়োস্কোপ দেখে খুশি উৎসুখ জনতা।
কাঠের এই বাক্সটির মধ্যে প্রধানমন্ত্রী, দেব-দেবী, নায়ক-নায়িকা, বিভিন্ন দর্শনীয় স্থানের ছবি দেখে আনন্দে আত্মহারা কোমলমতি শিশুরা।
বাবার সাথে মেলায় ঘুরতে এসেছিল ৫ম শ্রেণির ছাত্র রনি, এখানে এসে প্রথম বার বায়োস্কোপ দেখে অনেক খুশি এই শিশুটি। বায়োস্কোপ দেখার পর রনি জানায়, এমন জিনিস আগে কখনও দেখিনি! বায়োস্কোপের মধ্যে অনেক কিছু দেখেছে সে। রনির মত শত শত শিশুর-কিশোরের মুখেও বায়োস্কোপ দেখার পর একই হাসি।
৩৫ বছর ধরে বিভিন্ন এলাকায় বায়োস্কোপ দেখিয়ে যা আয় হয়, তাই দিয়ে চার ছেলে মেয়েসহ ৬ সদস্যের সংসার চালান ঝিনাইদহ জেলার শৈলকুপা উপজেলার বড়বাড়ি বগুড়া গ্রামের মো. ওলিয়ার বিশ্বাস। তিনি জানান, যেখানেই মেলা হয় সেখানেই বায়োস্কোপের বাক্সটি নিয়ে চলে যান। এ মেলায়ও তার ব্যতিক্রম ঘটেনি। নড়াইল থেকে ছুটে এসেছেন শিশুদের বিনোদন দিতে। শুরু থেকে (৩৫ বছর আগে) চার আনা আট আনা দিলেই দর্শকদের বায়োস্কোপ দেখাতেন তিনি। বর্তমানে একজনকে এটি দেখাতে ১০টাকা করে নেন।
আধুনিক সভ্যতার যুগে গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী পুরাতন এই বিনোদন টিকে থাকবে এমনটাই প্রত্যাশা সাংস্কৃতিক কর্মী নড়াইল সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শামীমুল ইসলাম টুলুর।

শেয়ার