কোহলির সেঞ্চুরিতে সমতা ফেরাল ভারত

সমাজের কথা ডেস্ক॥ দারুণ সেঞ্চুরিতে দ্বিতীয় ওয়ানডেতে অস্ট্রেলিয়াকে লড়াইয়ের পুঁজি এনে দিলেন শন মার্শ। তবে বিরাট কোহলির আরেকটি মাস্টারক্লাস সেঞ্চুরিতে জয় তুলে নিলো ভারত। বাঁচিয়ে রাখলো ওয়ানডে সিরিজ জয়ের আশা।

রোমাঞ্চকর উত্তেজনার ম্যাচে ৬ উইকেটে জিতেছে ভারত। ২৯৯ রানের লক্ষ্য ৪ বল বাকি থাকতে ছুঁয়ে ফেলে সফরকারীরা। এই জয়ে তিন ম্যাচের সিরিজে ১-১ সমতা এনেছে কোহলির দল।

অ্যাডিলেইড ওভালে মঙ্গলবার টস জিতে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা ভালো হয়নি অস্ট্রেলিয়ার। আরও একবার ব্যর্থ স্বাগতিকদের উদ্বোধনী জুটি। অ্যারন ফিঞ্চ ও অ্যালেক্স কেয়ারি ফিরে যান ২৬ রানের মধ্যে।

এক প্রান্ত আগলে রেখে দলকে এগিয়ে নেন মার্শ। থিতু হয়েও বড় ইনিংস খেলার সুযোগ হাতছাড়া করেন উসমান খাওয়াজা, পিটার হ্যান্ডসকম ও মার্কাস স্টয়নিস। তিন ব্যাটসম্যানই ফিরেন বিশের ঘরে।

রানের গতিতে দম দেন গ্লেন ম্যাক্সওয়েল। ক্রিজে যাওয়ার পর থেকে শট খেলতে শুরু করা এই অলরাউন্ডারের সঙ্গে ৯৪ রানের জুটিতে দলকে তিনশ রানের কাছে নিয়ে যান মার্শ। ১০৮ বলে ক্যারিয়ারের সপ্তম সেঞ্চুরি তুলে নেওয়ার পর শট খেলতে শুরু করেন এই মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যানও।

দ্রুত এগোনো দুই ব্যাটসম্যানকে দারুণ দুই স্লোয়ারে ফিরিয়ে দেন ভুবনেশ্বর কুমার। ৩৭ বলে ৪৮ রান করে ফিরেন ম্যাক্সওয়েল। ১১ চার আর ৩ ছক্কায় ১২৩ বলে মার্শ করেন ১৩১ রান।

শেষ ওভারে ভুবনেশ্বরকে একটি করে চার-ছক্কা হাঁকিয়ে দলকে ২৯৮ রানে নিয়ে যান ন্যাথান লায়ন।

ভুবনেশ্বর ৪৫ রানে নেন ৪ উইকেট। মোহাম্মদ শামি ৩ উইকেট নেন ৫৮ রানে। এক সময়ে অস্ট্রেলিয়ার ৩২০ রানও সম্ভব মনে হচ্ছিল। ভুবনেশ্বর ও শামির দারুণ বোলিংয়ে তিনশ রানের নিচেই থামে স্বাগতিকরা।

চ্যালেঞ্জিং রান তাড়ায় রোহিত শর্মার সঙ্গে ৪৭ রানের উদ্বোধনী জুটিতে দলকে ভালো শুরু এনে দেন শিখর ধাওয়ান। প্রথম থেকে বোলারদের ওপর চড়াও হওয়া বাঁহাতি এই উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান ৫ চারে ফিরেন ৩২ রান করে। আগের ম্যাচের সেঞ্চুরিয়ান রোহিত ফিরেন দুটি করে ছক্কা-চারে ৪৩ রান করে।

টানা তিন উইকেটে পঞ্চাশ ছোঁয়া জুটি গড়েন কোহলি। রোহিতের সঙ্গে ৫৪, অম্বাতি রায়ডুর সঙ্গে ৫৯ আর মহেন্দ্র সিং ধোনির সঙ্গে ৮২ রানের জুটিতে দলকে লড়াইয়ের পথে রাখেন তিনি।

ক্যারিয়ারের ৩৯তম সেঞ্চুরি পাওয়া কোহলিকে থামান জাই রিচার্ডসন। লেগ স্টাম্পে থাকা হাফ ভলি ফ্লিক করতে গিয়ে ডিপ মিডউইকেটে ম্যাক্সওয়েলের হাতে ধরা পড়েন ভারত অধিনায়ক। ১১২ বলে খেলা তার ১০৪ রানের ইনিংস গড়া ৫ চার ও দুই ছক্কায়।

শুরুতে মন্থর ব্যাটিং করা ধোনি রানের গতি বাড়ান কোহলির বিদায়ের পর। অভিজ্ঞ এই কিপার ব্যাটসম্যান সঙ্গ পান দিনেশ কার্তিকের কাছ থেকে। ষষ্ঠ উইকেটে ৩৪ বলে তাদের ৫৭ রানের জুটি দলকে নিয়ে যায় জয়ের বন্দরে।

৫৪ বলে দুই ছক্কায় ৫৫ রানে অপরাজিত থাকেন ধোনি। কার্তিক দুই চারে করেন অপরাজিত ২৫ রান।

আগামী শুক্রবার মেলবোর্নে হবে সিরিজ নির্ধারণী তৃতীয় ওয়ানডে।

রান তাড়ায় দারুণ ইনিংসে ব্যবধান গড়ে দেওয়া কোহলি জেতেন ম্যাচ সেরার পুরস্কার।

শেয়ার