ডা. কাজী রবিউল হককে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ যশোরের বর্ষিয়ান রাজনীতিক ও সামাজিক-সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব মুক্তিযোদ্ধা ডা. কাজী রবিউল হককে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন করা হয়েছে। রোববার বাদ জোহর যশোর ঈদগাহ ময়দানে দ্বিতীয় জানাজা শেষে কারবালা কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়। এর আগে রোববার সকাল ১১টায় তার মরদেহ জেলা উদীচী প্রাঙ্গনে আনা হলে যশোরের বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিকসহ সর্বস্তরের মানুষ তাকে শেষ শ্রদ্ধা জানান।
তাকে ফুলেল শ্রদ্ধা জানান যশোরের জেলা প্রশাসক আব্দুল আওয়াল, উদীচী যশোর জেলা সংসদের পক্ষে সভাপতি ডি এম শাহিদুজ্জামান ও সম্পাদক সাজ্জাদুর রহমান বিপ্লব, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট নেতৃবৃন্দ, প্রেসক্লাব যশোরের পক্ষে সভাপতি জাহিদ হাসান টুকুন, সম্পাদক তৌহিদুর রহমান, যশোর সাংবাদিক ইউনিয়নের পক্ষে সভাপতি সাজেদ রহমান ও সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রহমান মিলন, ফটো জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশন যশোর জেলা শাখার সভাপতি মনিরুজ্জামান মুনির ও সাধারণ সম্পাদক গালিব হাসান পিল্টু, যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি আব্দুস সাত্তার, যশোর জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার রাজেক আহমেদ, মুক্তিযোদ্ধা আফজাল হোসেন দোদুল, যশোর জেলা সিপিবির সভাপতি অ্যাডভোকেট আবুল হোসেন, সাধারণ সম্পাদক এলাহদাদ খান প্রমুখ।
এছাড়া যশোর সরকারি এমএম কলেজ, স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ, বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন, অক্ষর শিশু শিক্ষালয়, বঙ্গবন্ধু শিক্ষা ও গবেষণা পরিষদ, জনউদ্যোগ, নৃত্যবিতান, চাঁদের হাট, তীর্যক যশোর, সাহিত্য পরিষদ, চারুতীর্থ ক্রিয়েটিভ আর্ট স্কুল, নাগরিক অধিকার আন্দোলনসহ বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন কাজী রবিউল হককে শ্রদ্ধা জানায়।
শনিবার দুপুরে ডা. কাজী রবিউল হক ঢাকার বারডেমে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেন। পরে বাদ এশা ঢাকার মোহম্মদপুর জাপান গার্ডেন সিটি মসজিদে প্রথম জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। প্রয়াত ডা. রবিউল হকের ছেলে কাজী বর্ণ উত্তম জেলা আওয়ামী লীগনেতা ও সিটি ক্যাবল প্রাইভেট লিমিটেডের চেয়ারম্যান।
ডা. কাজী রবিউল হক ১৯৪১ সালের ১ জুন মাগুরায় নানা বাড়িতে জন্ম গ্রহণ করেন। পৈত্রিক বাসস্থান ঝিনাইদহ জেলার শৈলকূপা উপজেলার উমেদপুর গ্রামে। ৬০ এর দশকের শেষের দিকে বাবা কাজী এলহামুল হকের চাকরি সূত্রে যশোরের ৪৮ অম্বিকা বসু লেনের ‘আঁকাবাকা’ বাড়িতে স্থায়ী ভাবে বসবাস শুরু করেন। মা মরহুমা নুরুন নাহার বেগম। তিনি দুই সন্তানের জনক। তিনি উদীচী যশোরের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেছেন। মৃত্যুর আগ পর্যন্ত উদীচী কেন্দ্রীয় সংসদ ও যশোর জেলা সংসদের উপদেষ্টামন্ডলীর সদস্য ছিলেন। তিনি কমরেড মনিসিংহ-ফরহাদ ট্রাস্টের ট্রাস্টি বোর্ডের সদস্য ছিলেন। এছাড়াও তিনি যশোরের বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠনের সাথে জড়িত ছিলেন। ছিলেন যশোরের প্রগতিশীল সকল আন্দোলন-সংগ্রামের সাথেও।
উদীচী যশোরের সভাপতি ডিএম শাহিদুজ্জামান জানিয়েছেন, শনিবার এশা বাদ ঢাকার মহম্মদপুরের জাপান গার্ডেন সিটিতে তাঁর প্রথম নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। রাতে ঢাকা থেকে রওনা হয়ে যশোর অম্বিকা বসু লেনের তাঁর পৈত্রিক বাড়ি ‘আঁকাবাঁকা’ ভবনে রাখা হয়। রোববার সকাল ১১টায় শেষ শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য উদীচী যশোর কার্যালয়ে মরদেহ রাখা হয়। জোহর বাদ যশোর ঈদগাহ ময়দানে দ্বিতীয় নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। এরপর কারবালা কবরস্থানে দাফন করা হয়।

SHARE