যশোরে দুর্বৃত্তদের ছুরিকাঘাতে ব্যবসায়ী নিহত

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ যশোরে দুর্বৃত্তদের ছুরিকাঘাতে মহিদুল ইসলাম সাফা (৩৮) নামে এক ব্যবসায়ী খুন হয়েছেন। মঙ্গলবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে শহরের মুজিব সড়কের ঈদগাহ মাঠের পূর্ব পাশে এ ঘটনা ঘটে। এঘটনায় নিহতের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের কর্মচারী মোতালেব হোসেন টুটুল ও মাসুদুর রহমান নামে দুইজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশ হেফাজতে নিয়েছে। নিহত সাফা বেনাপোলের ধান্যখোলা গ্রামের নবিছ উদ্দিনের ছেলে এবং যশোর আরএন রোডের এইচএন এন্টারপ্রাইজের স্বত্বাধিকারী।
নিহতের কর্মচারী টুটুল জানিয়েছেন, সাফা যশোরের আরএন রোডে ভাড়া থাকেন এবং এইচএন এন্টারপ্রাইজ নামে একটি আমদানি ও রফতানি প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে ব্যবসা করেন। ওই প্রতিষ্ঠানে টুটুল কর্মচারি হিসেবে কাজ করেন। মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৬ টার দিকে শহরের আরএন রোডের হবিবর রহমানের ছয়তলা ভবনের গোডাউন থেকে কাজ শেষে খালধার রোড এলাকার মুকুলের দোকান থেকে চা পান করেন। এরপর কিছু কাগজপত্র কম্পোজ করার জন্য মুজিব সড়কের ঈদগাহ মাঠের পূর্ব পাশে মাসুদ কম্পিউটারের দোকানে যান। এসময় টুটুল মোটরসাইকেল চালাচ্ছিলেন। মাসুদ কম্পিউটারের সামনে পৌঁছানো মাত্র মোটরসাইকেল থেকে নামার সময় অজ্ঞাতনামা দুই দুর্বৃত্ত সাফার গলায় ছুরি ঢুকিয়ে দৌড়ে পালিয়ে যায়। এরই মধ্যে কম্পিউটারের দোকান্দার মাসুদুর রহমান এগিয়ে এসে টুটুলসহ সাফাকে নিয়ে যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যান। কিন্তু হাসপাতালে কর্তব্যরত চিকিৎসক মাসুদুর রহমান তাকে মৃত ঘোষণা করেন।
এদিকে নিহতের স্ত্রী রাবেয়া খাতুন বলেন, বিকেলে বাসা থেকে বের হয়ে দোকানে যাওয়ার কথা বলে বেরিয়ে যায়। সন্ধ্যার পর হঠাৎ করে টুটুল মোবাইল করে জানায় তার স্বামীকে কে বা কারা ছুরি মেরেছে।
এদিকে হত্যাকাণ্ডের কারণ এবং খুনিদের জন্য সনাক্ত করার জন্য কর্মচারী টুটুল এবং কম্পিউটারের দোকান্দার মাসুদকে হেফাজতে নিয়েছে পুলিশ। এব্যাপারে কোতোয়ালি মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা অপূর্ব হাসান জানিয়েছেন, পূর্ব শত্রুতার জের ধরে কেউ সাফাকে খুন করতে পারে। অভিযুক্তদের সনাক্ত এবং আটকের জন্য পুলিশ অভিযান অব্যাহত রেখেছে। এরিপোর্ট লেখা পর্যন্ত এঘটনায় কাউকে আটক করা বা মামলা দায়ের করা হয়নি।

শেয়ার