আজ বাঙালির বিজয়ের দিন

সমাজের কথা ডেস্ক॥ উড়ছে মৃত্যুমাখা স্বাধীনতার বিজয় নিশান বাংলার ঘরে ঘরে। ‘মুক্তির মন্দির সোপানতলে কত প্রাণ হলো বলিদান, লেখা আছে অশ্রুজলে…।’ রক্তনদী পেরিয়ে আসা আনন্দ-বেদনায় মিশ্র মহান বিজয় দিবস আজ। বিজয়ের গৌরবের- বাঁধভাঙ্গা আনন্দের দিন। একই সঙ্গে লাখো স্বজন হারানোর শোকে ব্যথাতুর-বিহ্বল হওয়ারও দিন আজ। তীব্র শোষণের জাল ভেদ করে একাত্তরের এই দিনটিতে প্রভাতী সূর্যের আলোয় ঝলমলিয়ে উঠেছিল বাংলার রক্তস্নাত শিশির ভেজা মাটি, অবসান হয়েছিল পাকিস্তানী শাসকগোষ্ঠীর সাড়ে তেইশ বছরের নির্বিচার শোষণ, বঞ্চনা আর নির্যাতনের কালো অধ্যায়। নয় মাসের জঠর-যন্ত্রণা শেষে এদিন জন্ম নেয় একটি নতুন দেশ স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশ। ঝড়ের ভিতরে বিকশিত অটল বৃক্ষের জীবন্ত প্রতীক স্বাধীনতা নামের অগ্নিস্ফুলিঙ্গ আজও প্রচন্ড ঝাঁকি দেয় রক্তে, শাণিত করে চেতনা। ঝড়ের ভিতরে বিকশিত অটল বৃক্ষের জীবন্ত প্রতীক স্বাধীনতা নামের অগ্নিস্ফুলিঙ্গ আজও প্রচন্ড ঝাঁকি দেয় রক্তে, শাণিত করে চেতনা।
তবে এবারের ডিসেম্বর আমাদের জীবনে নতুন তাৎপর্য নিয়ে এসেছে। বাঙালী জাতিকে এ বছরেই সিদ্ধান্ত নিতে হবে মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতার পথ ধরে অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ বিনির্মাণের পক্ষ শক্তিকেই সমর্থন দেবে, নাকি পঁচাত্তরের ১৫ আগস্টের মতোই সেই পরাজিত পাকিস্তানের প্রেতাত্মাদের আবারও ফিরিয়ে এনে দেশকে অন্ধকারের পথে ঠেলে দেবে। মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তির ইস্পাত কঠিন ঐক্য গড়ে তুলে পরাজিত শত্রুদের ফের পরাজিত করে জঙ্গীবাদ-সন্ত্রাস-দুর্নীতিমুক্ত বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণের পথেই থাকবে কি না, এ বছরেই গোটা বাঙালী জাতিকে দৃঢ় সিদ্ধান্ত নিতে হবে। কেননা এ বছরই হচ্ছে নির্বাচনের বছর। তাই এক অন্যরকম চ্যালেঞ্জ নিয়েই বাঙালী জাতি আজ উদযাপন করবে মহান বিজয় দিবস।
পূর্বাচলে আজ উদিত যে-সূর্য, প্রতিদিনের হয়েও সে প্রতিদিনের নয়; তার রক্তিমতায় তিরিশ লাখ শহীদের রক্ত আমাদের মনে পড়বে; আকাশ যে-কোমলতায় আজ উদ্ভাসিত, একাত্তরের সম্ভ্রমহারা দশ লাখ মা-বোন-জায়ার ক্রন্দনধোঁয়া সে-উদ্ভাস। ভোরের যে-রাঙা আলোটি আজ স্পর্শ করেছে ভূমি, স্বদেশের সেই পবিত্র ভূমি ভিজে আছে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর রক্তে; আর সেই রক্তস্রোতে মিশে আছে জাতীয় চার নেতার উষ্ণ শোণিত। দেনদরবার নয়, কারও দয়ার দানে নয়, সাগর-সমান রক্তের দামে বাংলাদেশ অর্জন করেছে স্বাধীনতা, রক্ত-সাগর পেরিয়ে বাঙালী জাতি পৌঁছেছে তার বিজয়ের সোনালি তোরণে। বিজয়ের ৪৭ বছর পূর্তিতে তোমাকে অভিবাদন, বাংলাদেশ।
৫৫ হাজার বর্গমাইলের এই সবুজ দেশে ৪৭ বছর আগে আজকের এই দিনে উদয় হয়েছিল হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ সূর্য। সেদিনের সেই সূর্যের আলোয় ছিল নতুন দিনের স্বপ্ন, যে স্বপ্ন অকাতরে প্রাণ দিয়েছিল এ দেশের ৩০ লাখ মানুষ। ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর কুয়াশায় জড়ানো হালকা শীতের বিকেলে রমনার রেসকোর্স ময়দানে দাম্ভিক পাকিস্তানী সেনারা যে অস্ত্র দিয়ে নির্বিচারে গুলি চালিয়েছে বাঙালীর বুকে, হাতের সেই অস্ত্র পায়ের কাছে নামিয়ে রেখে মাথা নিচু করে দাঁড়িয়ে ছিল মুক্তিবাহিনী ও মিত্রবাহিনীর নেতাদের সামনে।
শুধু নির্বাচনের চ্যালেঞ্জই নয়, বাঙালী জাতি এবার এক অন্যরকম স্বস্তিতে বাংলাদেশ নামক রাষ্ট্রের জন্মদিন পালন করবে। বিজয়ের দীর্ঘ সময় পরে হলেও ঘৃণ্য যুদ্ধাপরাধীদের বিচার এবং দন্ডাদেশ কার্যকর হয়েছে। শত ষড়যন্ত্র ও রক্তচক্ষুকে উপেক্ষা করে শীর্ষ যুদ্ধাপরাধী ও একাত্তরের নরঘাতক মতিউর রহমান নিজামী, আলবদরের প্রধান আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদ, সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরী, মোহাম্মদ কামারুজ্জামান, কাদের মোল্লা ও মীর কাসেম আলীকে ফাঁসির দড়িতে ঝুড়িয়ে মৃত্যুদন্ড কার্যকর করা হয়েছে। সারাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষের মানুষের মনে একটা স্বস্তি এসেছে। জাতির কলঙ্ক কিছুটা হলেও মোচন হয়েছে। এবারের বিজয় দিবস মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় মৌলবাদ, জঙ্গীবাদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে জয়ের মধ্য দিয়ে অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়ে তোলার স্বপ্ন বাস্তবায়নের অঙ্গীকারের পথে এগিয়ে যাওয়ার প্রেরণা নিয়ে এসেছে।

শেয়ার