যশোরে প্রতারণা মামলায় একজনের সশ্রম কারাদণ্ড

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ যশোরে প্রতারণা মামলায় মশিউর আজম শিকদার নামে এক আসামিকে দুই বছর সশ্রম কারাদ- ও অর্থদ- দিয়েছেন আদালত। দোষী প্রমাণিত না হওয়ায় খালিদ হোসেন শিকদার নামে আরেকজনকে খালাস দেয়া হয়েছে। বুধবার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক নুসরাত জাবীন নিম্মী এ রায় দিয়েছেন। দ-প্রাপ্ত মশিউর নড়াইল সদর উপজেলার হোসেনপুর গ্রামের মৃত ইসরাইল শিকদারের ছেলে। তিনি পলাতক রয়েছেন।
মামলার বিবরণে জানা গেছে, আসামিরা প্রতারক চক্রের সদস্য। বেসরকারি ব্যাংকে চাকরি দেয়ার নামে বিভিন্ন লোকের কাছ থেকে হাতিয়ে নেয়া টাকা তারা আত্মসাত করেন।
যশোর মোমিননগর সমবায় শিল্প ইউনিয়নের সহকরি হিসাবরক্ষক রকিব উদ্দিন আল নুরের শ্যালক যশোরের অভয়নগর নওয়াপাড়ার গুয়াখোলা গ্রামের ইদ্রিস আলী গাজীকে অগ্রণী ব্যাংকে চাকরি দেয়ার প্রস্তাব দেয় আসামিরা। তাদের প্রস্তাবে রাজি হয়ে ইদ্রিস আলীকে চাকরি দেয়ার জন্য ২০১৪ সালের ১ সেপ্টম্বর ৪ লাখ টাকা গ্রহণ করে আসামিরা। চাকরি না হলে মশিউদের দেয়া চেক ব্যাংকে জমা দিয়ে টাকা উত্তোলণ করে নিবে বলে তারা জানায়। চাকরি দিতে ব্যর্থ হওয়ার পর তাদের দেয়া চেক ব্যাংকে জমা দিলে চেকটি ভুয়া বলে ব্যাংক কতৃপক্ষ রকিব উদ্দিনকে জানিয়ে দেয়। পরবর্তীতে টাকা ফেরৎ চাইলে না দিয়ে ঘোরাতে থাকে। টাকা আদায়ে ব্যর্থ হয়ে ২০১৫ সালের ২৯ সেপ্টেম্বর ওই দুইজনকে আসামি দিয়ে প্রতারণার অভিযোগে আদালতে মামলা করেন রকিব উদ্দিন। এ মামলায় স্বাক্ষ্য গ্রহণ শেষে আসামি মশিউর আজমের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় বিচারক তাকে ২ বছর সশ্রম কারাদ- ও ৩ হাজার টাকা জরিমানার আদেশ দেন। জরিমানা অনাদায়ে তাকে আরো ২ মাসের বিনাশ্রম কারাদ-ের আদেশ দেয়া হয়েছে।

শেয়ার