সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত সমাজের কথার সম্পাদনা সহকারী সবুজ

কর্মস্থলে পৌঁছানোর আগেই না ফেরার দেশে

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ আশিকুল আলম সবুজ (৩৫)। যার হাতের ছোঁয়ায় দৈনিক সমাজের কথা নির্ভুলভাবে উপস্থাপন হতো। টগবগে সেই তরুণ না ফেরার দেশে চলে গেছেন। অফিসে আসার পথেই স্কয়ার কোম্পানির একটি কাভার্ড ভ্যান তার প্রাণ প্রদীপ নিভিয়ে দিয়েছে। গতকাল সন্ধ্যার পর যশোর শহরের কোল্ড স্টোর মোড়ে মর্মান্তিক এ দুর্ঘটনা ঘটে।
আশিকুল আলম সবুজ দৈনিক সমাজের কথার সম্পাদনা সহকারী ও যশোর সাংবাদিক ইউনিয়ন জেইউজে’র সদস্য। তিনি যশোর শহরের নীলগঞ্জ তাঁতীপাড়ার মৃত রফিকুল আলমের ছেলে। তার ৮ মাস বয়সের একটি পুত্র সন্তান রয়েছে। তার এই অকাল মৃত্যুতে স্বামী হারা স্ত্রীকে যেন সান্ত¦না দেওয়ার ভাষা হারিয়ে ফেলেছেন স্বজনরা। স্তব্ধ হয়ে গেছে সমাজের কথা বার্তা কক্ষ। প্রিয় সহকর্মীরা মৃত্যু তাদের ডুকরে ডুকরে কাঁদাচ্ছে। আর হাজারো স্মৃতিতে হৃদয়ে রক্তক্ষরণ হচ্ছে।
নিহত আশিকুল আলম সবুজের স্বজন বদরুল আলম জানান, প্রতিদিনের মতো গতকাল সন্ধ্যায় মোটরসাইকেল যোগে সবুজ তার কর্মস্থল দৈনিক সমাজের কথা অফিসে যাচ্ছিলেন। পথিমধ্যে যশোর-খুলনা মহাসড়কের বকচর এলাকায় স্কয়ার ওষুধ কোম্পানির একটি কাভার্ডভ্যান অপর একটি যাত্রীবাহী বাস ওভারটেক করে দ্রুতগতিতে যাওয়ার সময় সবুজকে চাপা দেয়। এসময় তিনি মাথায় প্রচ- আঘাত পান। তখন স্থানীয়রা দ্রুত তাকে যশোর জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যান। জরুরি বিভাগে নেয়ার পর চিকিৎসক আহম্মেদ তারেক সামস তাকে মৃত ঘোষণা করেন। তার মৃত্যুর খবর দৈনিক সমাজের কথা দপ্তরে পৌঁছালে শোকে স্তব্ধ ও বাকরুদ্ধ হয়ে যান সহকর্মীরা। দ্রুত হাসপাতালে ছুটে যান তারা। সেখানে সবুজের স্ত্রী নূরজাহান বেগম, খালা রেশমা বেগম, নানী শাশুড়ি আসিয়া বেগম, ছোটভাই সজীবসহ স্বজন, সহকর্মী, বন্ধু ও এলাকাবাসীর আহাজারিতে এক হৃদয়বিদারক পরিবেশ সৃষ্টি হয়। হাসপাতালে ছুটে যান প্রেসক্লাব সম্পাদক এসএম তৌহিদুর রহমানসহ সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ।
এদিকে, আশিকুল আলম সবুজের অকাল মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন দৈনিক সমাজের কথার সম্পাদক ও প্রকাশক শাহীন চাকলাদার, ব্যবস্থাপনা সম্পাদক শামীম চাকলাদার বাবু, বার্তা সম্পাদক হাবিবুর রহমান মিলনসহ সমাজের কথা পরিবার।
এদিকে, সবুজের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছে যশোর সাংবাদিক ইউনিয়ন জেইউজে। এক বিবৃতিতে যশোর সাংবাদিক ইউনিয়নের (জেইউজে) সভাপতি সাজেদ রহমান, সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রহমান মিলন, সহ সভাপতি প্রণব দাস, যুগ্ম সম্পাদক রেজাউল করিম রুবেল, কোষাধ্যক্ষ মারুফ কবীর, জেইউজে নির্বাহী সদস্য শফিক সায়ীদ ও জিয়াউল হক গভীর শোক প্রকাশ ও শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করেছেন।


পৃথক বিবৃতিতে শোকপ্রকাশ করেছেন বিএফইউজে-বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সহ সভাপতি মনোতোষ বসু, যুগ্ম মহাসচিব সাকিরুল কবীর রিটন, সদস্য নূর ইমাম বাবুল ও গোপীনাথ দাস।
নিহত সবুজ জেলা শ্রমিক লীগের প্রচার সম্পাদক চাঁন মিয়ার জামাতা। তার মৃত্যুর খবরে জেলা শ্রমিক লীগ সভাপতি আজিজুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক নাসির উদ্দিনসহ শ্রমিক লীগের নেতাকর্মীরাও হাসপাতাল প্রাঙ্গনে ছুটে যান।
এদিকে, দুর্ঘটনার পর পুলিশ ঘাতক কাভার্ড ভ্যান ও তার চালককে আটকের জন্য অভিযান শুরু করে। ঝুমঝুমপুর বিসিক এলাকা থেকে রাতে স্কয়ার কোম্পানির একটি কাভার্ড ভ্যান ও তার চালক শাহিনকে পুলিশ আটক করে। তবে আটক শাহিন দুর্ঘটনার কথা অস্বীকার করেছে। পুলিশ ঘটনায় জড়িত কাভার্ড ভ্যানটি সনাক্তের চেষ্টা করছে। আজ সোমবার ময়নাতদন্ত শেষে সবুজের মরদেহ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হবে। এরপর নামাজে জানাজা ও দাফন সম্পন্ন হবে।

শেয়ার