প্রতারণার অভিযোগে চুয়াডাঙ্গার একজনকে যশোরে মারপিট, আটক এক

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ চাকরি দেয়ার নামে প্রতারণার অভিযোগে চুয়াডাঙ্গার তরিকুল ইসলাম নামে এক কোম্পানির কর্মকর্তাকে যশোরে অপহরণের পর মারপিট করার তথ্য মিলেছে। পুলিশ এ ঘটনায় মুস্তাফিজুর রহমান নামে একজনকে আটক করেছে। সোমবার বিকেলে যশোর শহরের মুজিবসড়ক গ্রিন বাজারের সামনে এঘটনা ঘটে। আটক মুস্তাফিজুর রহমান চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার সরোজগঞ্জ-কালুর পোল গ্রামের আব্দুর রহিমের ছেলে।
থানা সূত্রে জানা গেছে, ভুক্তভোগী তরিকুল ইসলাম সেনা ফুড নামে একটি কোম্পানির চুয়াডাঙ্গাসহ ৭ জেলার দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা। তিনি চুয়াডাঙ্গা জেলার দামুড়হুদা উপজেলার ছমির উদ্দিনের ছেলে। অভিযুক্ত পুলিশের হাতে আটক মুস্তাফিজুর রহমানের ভাই মকলেছ হোসেনকে চাকরি দেয়ার প্রলোভন দেখিয়ে সাড়ে ৪ লাখ টাকা চুক্তি করে। গত দুই মাস আগে ৫০ হাজার টাকা অগ্রিম হিসেবে গ্রহণ করেন তরিকুল ইসলাম। চুক্তিতে উল্লেখ থাকে এক মাসের মধ্যে তাকে চাকরি দিবেন। কিন্তু দুই মাস পার হলেও চাকরি না দেয়ায় এবং মকলেছের পক্ষ থেকে যোগাযোগ করা হলে কোন সদুত্তর দিতে পারেনি তরিকুল ইসলাম। সম্প্রতি তরিকুল ইসলাম গা-ঢাকা দিয়ে চলার চেষ্টা করছে। এরই মধ্যে গত রোববার নড়াইলে কোম্পানির মিটিং করে যশোর হয়ে বাড়িতে ফিরবেন বলে জানতে পারেন মুস্তাফিজ। পাওনা টাকা আদায়ে রোববার বিকেল ৫টার দিকে যশোর শহরের দড়াটানা থেকে রিক্সায় মুজিবসড়ক হয়ে রেলস্টেশনে যাওয়ার সময় মুস্তাফিজ এবং তার আরো কয়েকজন সহযোগিদের নিয়ে তরিকুল গ্রিন বাজারের সামনে থেকে তুলে নিয়ে যায়। তাকে নিয়ে খড়কি এলাকার তিনটি মেসে রেখে শারীরিকভাবে নির্যাতন চালানো হয়। এরই মধ্যে সোমবার বিকেলে তরিকুল তাদের কাছ থেকে পালিয়ে বের হয়ে পুলিশকে অবহিত করেন। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে তরিকুলকে উদ্ধার এবং মুস্তাফিজকে আটক করে। কোতোয়ালি মডেল থানার এএসআই কাবিল হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

শেয়ার