যশোরে হাত পা বাঁধা অবস্থায় দোকান থেকে ব্যবসায়ীর মরদেহ উদ্ধার

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ যশোরে কামাল হোসেন বাবু (৪০) নামে এক মুদি ব্যবসায়ীকে শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়েছে। শুক্রবার সকালে শহরতলীর শেখহাটি জামরুলতলা এলাকায় তার দোকানের মধ্যে থেকে মরদেহ উদ্ধার করা হয়। তার মুখ স্কসটেপ দিয়ে এবং হাত ও পা চাদর দিয়ে বাঁধা ছিল। বাবু তরফ নওয়াপাড়া এলাকার মৃত শাহাদৎ ফকিরের ছেলে।
বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে কোন এক সময় দুর্বৃত্তরা তাকে বেঁেধ শ্বাসরোধে হত্যা করে দোকান থেকে টাকা লুট করেছে বলে ধারণা করছে পুলিশ ও তার পরিবারের লোকজন। শুক্রবার সকালে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে যশোর জেনারেল হাসপাতালে পাঠালে সেখানে ময়নাতদন্ত হয়। পরে পরিবারের কাছে লাশ হস্তান্তর করে পুলিশ।
কামাল হোসেন বাবুর ভাই আব্দুর রহিম জানিয়েছেন, জন্ম থেকে বাবুর দুই পায়ে সমস্যা ছিল। তার পা দুটি বাঁকা। ফলে স্বাভাবিক ভাবে তিনি হাঁটতে পারতেন না। শেখহাটি জামরুল তলার মোড়ের স’মিলের পাশে তার একটি দোকান আছে। সেখানে বেকারী পণ্য পাইকারি বিক্রি করতেন। এছাড়া চাসহ মুদি মালামালও বিক্রি করতেন তিনি। শুক্রবার সকাল ৬টার দিকে সখিনা বেগম নামে এক নারী শ্রমিক তাকে ডেকে উঠানোর চেষ্টা করেন। সখিনা সকালে তার দোকানে পানি সরবরাহ করে থাকেন। কিন্তু সখিনার ডাকে কোন সাড়া দেননি। দোকানের সার্টার (ঝাপ) খোলা ছিল। ওই নারী বাড়িতে গিয়ে সংবাদ দিলে তিনি (রহিম) দোকানের কাছে যান। সেখানে গিয়ে দেখেন দোকানের মধ্যে হাত পা এবং মুখ স্কসটেপ দিয়ে বাঁধা। তার মরদেহ পড়ে আছে। সংবাদ দিলে সকাল ৮টার দিকে তালবাড়িয়া পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ এসআই সাহাবুল আলম সেখানে গিয়ে মরদেহ উদ্ধার করেন।
এসআই সাহাবুল আলম বলেছেন, দোকানের মধ্যে হাতপা বাঁধা অবস্থায় বাবুর মরদেহ উদ্ধার করা হয়। রাতে সম্ভাবত কোন দুর্বৃত্তচক্র তাকে হত্যা করে দোকান থেকে টাকা নিয়ে গেছে। ক্যাসবাক্সও এলামেলো অবস্থায় ছিল। শুক্রবার সন্ধ্যা পর্যন্ত থানায় কোন অভিযোগ জমা পড়েনি।

SHARE