মণিরামপুরে ঋষিপল্লীতে গৃহবধূ গণধর্ষণের অভিযোগে মামলা, আটক ১

নিজস্ব প্রতিবেদক, মণিরামপুর॥ যশোরের মণিরামপুরের পাড়ালা ঋষি পল্লীর এক গৃহবধুকে গণধর্ষণের অভিযোগে ৫ জনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। সোমবার রাতে ভিকটিমের মা বাদি হয়ে ৫ জনের বিরুদ্ধে থানায় এজাহার দায়ের করেন।
পুলিশ জানায়, ৫ নভেম্বর রাত সাড়ে ৭টার দিকে পাড়ালা গ্রামের পল্টু ঠাকুরের বাগানে এই গ্রামের ঋষি পাড়ার এক গৃহবধু ধর্ষণের শিকার হয়। ধর্ষকরা তাকে হুমকি দিলে সে আত্মীয় বাড়িতে লুকিয়ে থেকে স্থানীয়দের সহায়তায় অবশেষে ১২ নভেম্বর থানায় আসে। এদিন ধর্ষিতার জবানবন্দী নেন মণিরামপুর সার্কেলের এএসপি রাকিব হাসান ও অফিসার ইনচার্জ শহিদুল ইসলাম। ধর্ষিতার বক্তব্যের সত্যতা খুঁজতে তাৎক্ষনিক ভাবে এলাকায় তদন্ত করতে যান এসআই খান আব্দুর রহমান। তিনি ঘটনার প্রাথমিক সত্যতা পাওয়ায় এলাকা থেকে সোমবার বিকেলে জটু দাশ (৪৫) নামের এক ধর্ষককে আটক করে থানায় আনেন। তার স্বীকারোক্তি ও ধর্ষিতার জবানবন্দীর মিল হওয়ায় ওই রাতেই ৫ জনের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের গণধর্ষণ ধারায় মামলা রেকর্ড হয়। যার মামলা নং-২১(১১)১৮।
মামলা সূত্রে জানাগেছে, পাড়ালা গ্রামের মৃত ফুল চাঁনের পুত্র খোকন (৪৫), সাতগাতী গ্রামের মৃত ধীরেন্দ্র নাথ পালের পুত্র দীপক (৪২), পাড়ালা ঠাকুর পাড়ার মৃত হরিষচন্দ্র ঠাকুরের পুত্র বসন্ত ঠাকুরসহ (৪৭) ৫জন ঘটনার রাতে ওই গৃহবধুকে ধরে জোর করে পল্টু ঠাকুরের বাগানে নিয়ে ধর্ষণ করে।
মামলার তদন্তকারী অফিসার ওসি (তদন্ত) এসএম এনামুল হক জানান, ধর্ষিতাকে ডাক্তারী পরীক্ষা ও ম্যাজিট্রেটের কাছে জবানবন্দী দেয়ার জন্য মঙ্গলবার সকালে যশোরে পাঠানো হয়েছে। আটক জটু দাশকে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে। ঘটনার সাথে জড়িত অন্যদেরকে আটকের জন্য চেষ্টা করা হচ্ছে।

SHARE