যশোরে প্রসূতির মৃত্যু, হাসপাতাল ভাংচুর

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ যশোরে একটি বেসরকারি হাসপাতালে সন্তান জন্ম দেওয়ার কয়েক ঘণ্টার মাথায় এক প্রসূতির মৃত্যুর ঘটনায় হাসপাতালে ভাংচুর চালিয়েছে স্থানীয় বাসিন্দারা। শহরের ‘কুইন্স হাসপাতালে’ বৃহস্পতিবার রাত ১১ টার দিকে ভাংচুরের এ ঘটনা ঘটে বলে কোতোয়ালি থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আবুল বাশার মিয়া জানিয়েছেন।
মৃত পিংকি দেবনাথ (৩০) সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোহিত কুমার নাথের ছেলে পার্থ প্রতীম দেবনাথ রতির স্ত্রী।
রতির ভাই রাণানাথ সংবাদকর্মীদের বলেন, পিংকি কুইন্স হাসপাতালে গাইনি বিভাগের চিকিৎসক জাকির হোসেনের তত্ত্বাবধানে ছিলেন। বৃহস্পতিবার দুপুরে সেখানেই অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে পিংকির মেয়ে হয়। এরপর সন্ধ্যায় ডা. জাকির ওমিপ্রাজল গ্রুপের একটি ইনজেকশনের নাম লিখে কিনে আনতে বলেন। রাত ৯টার দিকে হাসপাতালের নার্স জেসমিন ইনজেকশন দেওয়ার পর রোগীর অবস্থা খারাপ হয়। এরপর পিংকি মারা যায়। তবে পিংকির নবজাতক সন্তান সুস্থ আছে বলে জানান রাণানাথ।
এদিকে পিংকির মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়লে বিক্ষুদ্ধ লোকজন কুইন্স হাসপাতালের সাত তলায় উঠে আসবাবপত্র তছনছ এবং জানালার কাচ ভাংচুর করে।


ওই সময় হাসপাতালে রোগী ও তাদের স্বজনদের মধ্যে আতংক ছড়িয়ে পড়ে। চিকিৎসক, সেবিকা ও কর্মচারীরা হাসপাতাল থেকে সরে পড়েন। খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে বিক্ষুব্ধদের হাসপাতাল থেকে সরিয়ে দিলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে বলে পরিদর্শক আবুল বাশার জানান। এদিকে, ভাংচুরের ঘটনায় ‘তৃতীয় কোনো পক্ষ’ জড়িত বলে সন্দেহ প্রকাশ করেন কুইন্স হাসপাতালের ব্যবস্থাপক মিঠু সাহা।
চিকিৎসক জাকির হোসেন বলেন, ‘রোগীর স্বজনরা পাশের একটি ফার্মেসি থেকে অন্য একটি কোম্পানির ইনজেকশন কেনেন; সেটা ভেজাল ছিল বলে মনে হচ্ছে। ওই ইনজেকশন দেওয়ার কারণে তার মৃত্যু হতে পারে।’

SHARE