চাঁদাবাজি ও হুমকির অভিযোগ কেশবপুর পৌর কাউন্সিলরসহ ৮ জনের বিরুদ্ধে মামলা

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ চাঁদাবাজি ও খুন জখমের হুমকির অভিযোগে কেশবপুর পৌরসভার কাউন্সিলর জামাল উদ্দিনসহ ৮ জনের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা হয়েছে। বৃহস্পতিবার কেশবপুরের সাবদিয়া গ্রামের মৃত ছবেদ আলী গাজীর স্ত্রী অবসরপ্রাপ্ত ব্যাংক কর্মকর্তা রাশিদা খাতুন বাদী হয়ে যশোর আদালতে এ মামলা দায়ের করেছেন। অতিরিক্ত চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রট আদালতের বিচারক মুহাম্মদ আকরাম হোসেন অভিযোগটি গ্রহণ করে স্বাক্ষী হাফিজুর রহমান ও ছামিউন নেছার স্বাক্ষ্য গ্রহণ করে আদেশের জন্য ১৩ মে দিন ধার্য করেছেন।
আসামিরা হলেন, কেশবপুরর পৌসভার ৩ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর সাবদিয়া গ্রামের জামাল উদ্দিন ও তার ছেলে শাহিন হোসেন, জামাল উদ্দিনের ভাগ্নে সবুজ হোসেন ওরফে বড় সবুজ, নাছির উদ্দিনের ছেলে সবুজ হোসেন নিরব ওরফে ছোট সবুজ, আব্দুর রাজ্জাক ওরফে কসাই রাজ্জাক ও তার ছেলে হাসান আলী, রেজাউল দফতরির ছেলে নাজমুল ইসলাম ও সোহরাব হোসেন শেখের ছেলে সুমন হোসেন।
মামলার বিবরণে জানা গেছে, রাশিদা খাতুন অবসরপ্রাপ্ত ব্যাংক কর্মকর্তা। আসামিরা এলাকার চিহ্নিত চাঁদাবাজ। কাউন্সিলর জামাল উদ্দিন সাবদিয়া গ্রামে মাতৃত্বকালীন, বয়স্ক ও বিধবা ভাতা এবং ভিজিডি, ভিজিএফ’র চাল পাইয়ে দেয়ার নামে সাধারণ মানুষের কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিয়ে আত্মসাত করেছেন। এছাড়া বিদ্যুতের সংযোগ দেয়ার নামে চাঁদা এবং সাবদিয়া স্বতন্ত্র এবতেদায়ী মাদ্রাসার দুই শিক্ষক চাঁদা না দেয়ায় যোগদান করতে দেননি কমিশনার ও তার সহযোগীরা।
রাশিদা খাতুন অভিযোগে আরও উল্লেখ করেছেন, গত ৩ ফেব্রুয়ারি কেশবপুরে তিনি একটি সংবাদ সম্মেলন করে কমিশনার ও তার সহযোগীদের দুনীতির ব্যাপারে সংবাদ সম্মেলন করেন। সংবাদ সম্মেলন করায় কমিশনার ও তার সহযোগীরা রাশিদা খাতুনের উপর চরমভাবে ক্ষিপ্ত হন। একারনে তাকে হত্যার হুমকি দেন। রাশিদা বেগম কেশবপুর পৌর এলাকায় একটি বাড়ির নকশা অনুমোদনের জন্য পৌর সভায় যান। এ সময় কাউন্সিলর ও তার সহযোগীরা ৫০ হাজার টাকা চাঁদ দাবি করেন। আর ওই চাঁদার টাকা না দিলে আবেদন জমা দিতে দেবেনা বলে জানিয়ে দেন। পরবর্তীতে তিনি কমিশনারকে ২৫ হাজার টাকা চাঁদা দেন। এরপর বাড়ির কাজ শুরু করলে আসামিরা তার কাছে আরো এক লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেন। এরপর অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে এক লাখ টাকা নিয়ে যায় আসামিরা। এ ব্যাপারে থানায় মামলা করতে গেলে পুলিশ তা গ্রহণ না করায় তিনি আদালতে এ মামলা করেছেন।

SHARE