জন্মদিনে রবি ঠাঁকুরের বন্দনায় যশোরের উদীচী পুনশ্চ ও সুরবিতান

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ মেঘের ফাঁক গলে আসা রোদ্দুরের গুমোট গরম। বিকেল না গড়াতেই আকাশে সন্ধ্যার ছায়া। প্রকৃতির থমথমে ভাবে মনে হচ্ছে যখন তখন নামবে উথাল পাতাল বৈশাখি ঝড়। তখন বিকেল পাঁচটার কিছু বেশি। শতাব্দী বটতলে রওশন আলী মঞ্চে দল বেঁধে দাঁড়িয়ে আছে কঁচিকাঁচার দল। কবি গুরু রবি ঠাকুর স্মরণে তারই রচিত গান কোরাস গাইবে বলে। এলোমেলো বাতাসের মাঝে মঞ্চে সুর তুলল বাদ্যযন্ত্র। সমস্বরে পুনশ্চের শিশু শিল্পীরা গেয়ে উঠল রবি কবির লেখা অতি পরিচিত সেই গান ‘হারে রেরে রেরে আমায় ছেড়ে দেরে দেরে…’।


মঙ্গলবার বিকালে শহরের মুন্শি মেহেরুল্লাহ ময়দানের রওশন আলী মঞ্চে রবি ঠাকুরের লেখা গান, কবিতা, ছড়া আবৃত্তি ও নাটক মঞ্চায়নের মধ্য দিয়ে কবির ১৫৭ তম জন্মজয়ন্তী পালন করে সাংস্কৃতিক সংগঠন পুনশ্চ। জন্মজয়ন্তী অনুষ্ঠানে রবি ঠাকুরের নাটক খ্যাতির বিড়ম্বনা মঞ্চায়িত হয়। এদিকে বিকেল ৫ টা ৩১ মিনিটে শহরের পৌর উদ্যানে কবি বন্দনায় মাতে উদীচী। উদ্যানের উন্মুক্ত মঞ্চে উদীচীর শিল্পীরা কবির সৃজন করা গান, ছড়া কবিতা পরিবেশনের মাধ্যমে রবীন্দ্র জয়ন্তী উদ্যাপন করেন। এদিন সন্ধ্যায় সুরবিতান সংগীত একাডেমি প্রতিষ্ঠানের রানা স্মৃতি মঞ্চে রবীন্দ্র নাথ ঠাকুরের ১৫৭ তম জন্মজয়ন্তী পালন করেছে। ‘আমরা সবাই রাজা আমাদের এই রাজার রাজতে’¡ গানটির মধ্য দিয়ে সুরবিতান জন্মজয়ন্তী অনুষ্ঠানের সূচনা করে। এতে সুরবিতানের শিল্পরা ২০টি ভিন্ন ধর্মী রবীন্দ্র সংগীত পরিবেশন করে।

শেয়ার