ট্রাম্পের ঘোষণার পরই পাকিস্তানে সাহায্য বন্ধ

সমাজের কথা ডেস্ক॥ যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বছরের প্রথম টুইটে পাকিস্তানকে সাহায্য বন্ধের ঘোষণা দেওয়ার পরই দেশটিতে ২৫ কোটি ৫০ লাখ ডলারের সাহায্য স্থগিত করেছে মার্কিন প্রশাসন।
যুক্তরাষ্ট্রের সন্ত্রাস বিরোধী লড়াইয়ে পাকিস্তান পূর্ণ সহযোগিতা করতে ব্যর্থ হওয়ার কারণেই সাহায্য বন্ধ রাখা হচ্ছে বলে মঙ্গলবার জানিয়েছেন জাতিসংঘে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত নিকি হ্যালি।
সন্ত্রাস দমনের নামে পাকিস্তানের প্রতারণার অভিযোগ তুলে সোমবার ক্ষুব্ধ টুইট করেছিলেন ট্রাম্প। তারপরই মার্কিন প্রশাসন জানাল, দেশের মাটিতে সন্ত্রাস দমনে পাকিস্তান কতটা সক্রিয়, তা দেখে তবেই পরবর্তীতে আবার সাহায্যের কথা ভাবা হবে।
যুক্তরাষ্ট্রের অভিযোগ, সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে পাকিস্তান ‘দ্বিমুখী নীতি’ অবলম্বন করছে।
পাকিস্তানে সাহায্য বন্ধের পরিস্কার কারণ আছে জানিয়ে নিকি হ্যালি বলেছেন, “কয়েক বছর ধরেই পাকিস্তান (সন্ত্রাস দমনে) দ্বিমুখী নীতি অবলম্বন করে আসছে। তারা একই সময়ে আমাদের সঙ্গে কাজ করছে, আবার আফগানিস্তানে আমাদের সেনাদের উপর হামলাকারী জঙ্গিদের আশ্রয়ও দিচ্ছে।”
হোয়াইট হাউজের মুখপাত্র সারাহ স্যান্ডার্স বলেছেন, “বর্তমান মার্কিন প্রশাসন এ দ্বিমুখী নীতি মেনে নেবে না। সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে আমরা পাকিস্তানের কাছ থেকে আরও অনেক বেশি সহযোগিতা আশা করি।”
সাংবাদিকদের তিনি বলেন, “তারা (পাকিস্তান) সন্ত্রাস বন্ধে আরো বেশিকিছু করতে পারে। আর আমরাও চাই তারা তা করুক।”
এ বিষয়ে ইসলামাবাদকে চাপ দিতে হোয়াইট হাউজ কয়েকদিনের মধ্যে তাদের কর্মপরিকল্পনা ঘোষণা করবে বলেও জানিয়েছে।

শেয়ার