মিশরে বন্দুকধারীর হামলায় নিহত ১১

সমাজের কথা ডেস্ক॥ মিশরের রাজধানী কায়রোর শহরতলীতে কপটিক অর্থোডক্স খ্রিস্টানদের একটি গির্জা ও খ্রিস্টান মালিকানাধীন একটি দোকানে বন্দুকধারীর হামলায় অন্তত ১১ জন নিহত হয়েছেন বলে জানিয়েছেন গির্জাটির কর্মকর্তারা।

শুক্রবারের এ হামলার পর হামলাকারীকে আহত অবস্থায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে জানিয়েছে মিশরের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, খবর বার্তা সংস্থা রয়টার্সের।

দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, এ ঘটনায় দুই নারীসহ পাঁচজন আহত হয়েছেন। আহত দুই নারীর অবস্থা আশঙ্কাজনক।

ইসলামিক স্টেট (আইএস) হামলার দায় স্বীকার করেছে বলে জঙ্গিগোষ্ঠীটির বার্তা সংস্থা আমাকে প্রকাশিত এক বিবৃতিতে দাবি করা হয়েছে। তবে দাবির সপক্ষে কোনো প্রমাণ দাখিল করেনি জঙ্গিগোষ্ঠীটি।

আগামী ৭ জানুয়ারি কপটিক খ্রিস্টানদের ক্রিসমাস পরব উপলক্ষে আক্রান্ত গির্জাটিকে ঘিরে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করেছিল পুলিশ। পরবটি উপলক্ষে মিশরের বড় গির্জাগুলোর প্রত্যেকটির প্রবেশ পথে মেটাল ডিটেক্টর বসিয়ে নিরাপত্তা কর্মকর্তাদের মোতায়েন করা হয়েছে। এর মধ্যেই হামলার ঘটনাটি ঘটেছে।

নিরাপত্তা বাহিনী ও রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যমের প্রথমদিকের প্রতিবেদনগুলোতে হামলায় অন্তত দুইজন অংশ নিয়েছেন বলে জানানো হয়েছিল। বলা হচ্ছিল, এদের একজন নিরাপত্তা বাহিনীর গুলিতে নিহত হয়েছেন ও অন্যজন ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে গিয়েছেন। কিন্তু পরে জানায়, হামলায় একজন অংশ নিয়েছেন এবং তাকে আহত অবস্থায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় একই ঘটনার দুই রকম ভাষ্যের কোনো ব্যাখ্যা দেয়নি বলে জানিয়েছে রয়টার্স।
কপটিক গির্জাটি জানিয়েছে, ওই বন্দুকধারী কায়রোর হেলুয়ানে গির্জা থেকে চার কিলোমিটার দূরে খ্রিস্টান মালিকানাধীন একটি দোকানে দুইজনকে হত্যার পর এগিয়ে এসে মার মিনা গির্জায় হামলা চালায়।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, সে গির্জার প্রবেশ পথে গুলিবর্ষণ করে ও একটি বোমা নিক্ষেপের চেষ্টা করে।

শেয়ার