বোলারদের দিয়ে চমক দেখাতে চান সুজন

সমাজের কথা ডেস্ক॥ বেশিরভাগ সময়ই দেখা যায়, বাংলাদেশ দলের জয়ের ব্যাপারে ব্যাটসম্যানদের অবদান থাকে বেশি। বোলাররা খুবই কম জয়ে অবদান রাখেন। বাংলাদেশ দলের নতুন ট্যাকনিক্যাল ডিরেক্টর খালেদ মাহমুদ সুজন বোলারদের দিয়েই চমক দেখাতে চান। অন্তত তার কথায় তেমনটাই মনে হয়েছে।
খালেদ মাহমুদ সুজনের ভাষ্যমতে, ‘আমার যেটা নিয়ে ভাবন, সব সময় দেখা যায় ব্যাটসম্যানরা ম্যাচ জেতায়। তবে মোস্তাফিজের স্পেলে জিতেছি, মিরাজের স্পেলে জিতেছি। এরকম হাতে গোনা কিছু স্পেলও আছে। এটা নিয়ে ওদের সাথে কথা বলছি। নতুনরা তো সব সময় রোমাঞ্চ নিয়ে আসে। সেটাও একটা ব্যাপার। আমার কথা হলো, পারফরমারদের সব সময় সুযোগটা থাকবেই। এটা এখনি বলার সময় হয়নি। কিন্তু এতগুলা তরুণকে যখন ডাকা হয়েছে। ইতিবাচক কিছু তো আছেই। তারপরও অভিজ্ঞদের কথা ভুলে গেলে চলবে না।’
বোলারদের নিয়ে কাজ করা সম্পর্কে বলতে গিয়ে তিনি বলেন, ‘ যখন স্কিল ট্রেনিং শুরু হয়ে যায় ব্যাটসম্যানরা অনেক সময় নিয়ে ব্যাটিং করে। পেসাররা অত সময় পায় না। সব ফরম্যাটেই বোলারদের দরকার হয় ব্যাটিং করার। টেল এন্ডে গিয়ে ১৫/২০ রান করা অনেক গুরুত্বপূর্ণ হয়ে যায়। ওদের ব্যাটিং নিয়ে কাজ করছিলাম। আর বোলিং যেহেতু ৪ তারিখ থেকে শুরু করবে। মাত্রই ফার্স্ট ক্লাস শেষ করে এল, সবাই ওভারলোডেড। বেসিকটা নিয়ে কাজ করতে চাই, সুইং বোলিং নিয়ে কাজ করতে চাই। ‘

নতুনদের নিয়ে বেশ রোমাঞ্চিত সুজন। জাতীয় দলের সাবেক এই অধিনায়ক বলেন, ‘ দল কেমন হবে, সেটা পরের ব্যাপার। আমি রোমাঞ্চিত। সবাই পারফর্ম করেছে, আবু হায়দার রনি কিংবা আবু জায়েদ রাহি; অফ স্পিনার হিসেবে মেহেদী, অপুরা আছে।’

বিদেশের মাটিতে দেশের বোলাররা বারবার ব্যর্থ হচ্ছেন, এটা অবশ্য মানতে নারাজ এই বিসিবি পরিচালক। তিনি বলেন, ‘বিদেশে পারে নাই? আমরা যদি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির কথা বলি। রুবেলের দারুণ একটা স্পেল ছিল। পারফরম্যান্স নেই যে তা না, ছিটেফোঁটা আছে। তবে গত দুই বছর পেসারদের থেকে যতটুকু প্রত্যাশা করেছি, সেটা হচ্ছে না। একুরেসি আর সুইং নিয়ে আমরা কাজ কম করেছি। এটা নিয়ে কাজ করতে চাই।’

শেয়ার